Home চট্টগ্রাম অসহায় নারী ও শিশুদের সহায় ‘আমব্রেলা ফাউন্ডেশন’

অসহায় নারী ও শিশুদের সহায় ‘আমব্রেলা ফাউন্ডেশন’

মির্জা মাহমুদ আহমেদ

বাংলাদেশের বাস্তবতায় নারীরা বৃদ্ধ বয়সে পরিবারের বোঝা হিসেবে বিবেচিত হয়। শুধু বয়স্ক নারীদের কথাই বলছি কেন? কম বয়সের অনেক নারীও দারিদ্র, যৌতুক, স্বামীর মাদক গ্রহণ ও বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের কারণে নির্যাতিত হন। বেশিরভাগ নারী মুখ বুজে স্বামীর নির্যাতন মেনে নিলেও কোনো কোনো ক্ষেত্রে নির্যাতন মাত্রা ছাড়িয়ে গেলে অনেক সময় বিবাহ-বিচ্ছেদের মতো কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হয়। বিবাহ-বিচ্ছেদের পর নির্যাতিত নারীরা পারিবারিক ও সামাজিক কোনো সহায়তা পান না। অন্যদিকে শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের অভাবে কোনো সম্মানজনক পেশাও তারা বেছে নিতে পারেন না। যার ফলে বেশিরভাগ দারিদ্রপীড়িত নারী স্বল্পবেতনে অসম্মানজনক পেশা বেছে নিতে বাধ্য হন। কোনো কোনো ক্ষেত্রে অনেকে ভিক্ষাবৃত্তি বা অবৈধ-অসামাজিক কাজের সঙ্গেও জড়িয়ে পড়েন।
অসহায় দারিদ্রপীড়িত এসব নারী ও শিশুদের সহায় হিসেবে কাজ করছে ‘আমব্রেলা ফাউন্ডেশন’। প্রতিষ্ঠার পর থেকে অলাভজনক, অরাজনৈতিক ও স্বেচ্ছাসেবী এ সংস্থাটি দরিদ্র স্বামী পরিত্যাক্তা নারী ও শিশুদের জন্য নিরাপদ আশ্রয়, পোশাক ও খাদ্যের যোগান দিয়ে যাচ্ছে। বিগত বছরগুলোর মতো সামনেও ‘আমব্রেলা ফাউন্ডেশন’ এ সকল নারী-শিশুদের পুনর্বাসনে সহযোগিতার আন্তরিক কোমল হাত বাড়িয়ে দিতে চায়।
‘আমব্রেলা ফাউন্ডেশন’ এমন একটি সমাজের স্বপ্ন দেখে, যেখানে কোনো নারী ও শিশু মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত হবে না। তাই বর্তমানে এ সংস্থায় আশ্রিতদের শিক্ষা ও স্বাস্থ্য নিশ্চিত করা, পুষ্টিকর খাবার ও পানীয় জল সরবরাহ করা, অনিরাপদ পরিবেশ থেকে রক্ষা করাসহ মনস্তাত্বিক পরামর্শ ও বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। নারী ও শিশুদের জন্য নিরাপদ, অহিংস, বৈষম্য ও অন্যায়মুক্ত স্বপ্নের সমাজ গঠনের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে সংস্থাটি।
গৃহহীন নারী ও শিশুদের জীবনমান উন্নত করার পদক্ষেপ হিসেবে শিশুদের শিক্ষা উপকরণ সরবরাহ করা ও নারীদের স্বনির্ভর করার উদ্দেশে কাজ করে যাচ্ছে তারা।
বর্তমানে ছয়টি প্রাথমিক পরিষেবার ভিত্তিতে ‘আমব্রেলা ফাউন্ডেশন’ নারী ও শিশুদের জন্য কাজ করছে। যার মধ্যে রয়েছে দরিদ্র, অসহায় নারীদের জন্য নিরাপদ আশ্রয়স্থলের ব্যবস্থা করা, সমাজে পুনর্বাসন না হওয়া পর্যন্ত আশ্রয় গ্রহনের সুযোগ প্রদান করা, আশ্রিত নারী ও শিশুদের খাদ্য এবং প্রয়োজনীয় সকল উপকরণ সরবরাহ করা এবং নিরাপদ পানি পান, রান্না এবং গৃহস্থালির কাজে ব্যবহারের জন্য টিউবওয়েল স্থাপন করা।
জানা গেছে, আমব্রেলা ফাউন্ডেশনে আশ্রিত নারী ও শিশুদের বিশেষ দক্ষতার বিকাশ ঘটাতে ও সামাজিকভাবে সংগঠিত করতে প্রাথমিক শিক্ষা ও উন্নয়ণ প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়। এ ছাড়াও নারীদের গৃহস্থালি, সেলাই, রান্না, হাঁস-মুরগী পালনবিষয়ক প্রশিক্ষণ প্রদানের পাশাপাশি প্রাথমিক শিক্ষা ও পরিবার পরিকল্পনা সংক্রান্ত প্রশিক্ষনও প্রদান করা হচ্ছে।
আশ্রিত নারীদের স্বাস্থ্য ও আইনি সেবা নিশ্চিতের লক্ষ্যে তাদের বিভিন্ন স্থানীয় হাসপাতাল, ক্লিনিক ও আইনি সেবাসংস্থার সঙ্গে নেটওয়ার্ক স্থাপন করে দিয়েছে আমব্রেল ফাউন্ডেশন।
এসব জনহিতকর কার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে প্রচুর অর্থের প্রয়োজন। তাই যেকোনো কর্পোরেট প্রতিষ্ঠান ও সমাজের বিত্তবান ব্যক্তিরা এ মানবিক উদ্যোগের সঙ্গে যুক্ত হতে পারেন।
জানা গেছে, ‘আমব্রেলা ফাউন্ডেশন’ কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে কৌশলগত অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে স্পন্সরশিপ আহবান করছে। এ ছাড়া ব্যক্তিশ্রেণির ডোনারদের কাজ থেকে ‘লাইফ টাইম মেম্বার’, ‘রেগুলার মেম্বার’ এবং ‘ওয়ান টাইম চ্যারিটি’ ক্যাটাগরিতে অনুদান সংগ্রহ করছে।

NO COMMENTS

Leave a Reply