Home চট্টগ্রাম ট্রাফিক সিগন্যাল ছাড়া জেব্রা ক্রসিং!

ট্রাফিক সিগন্যাল ছাড়া জেব্রা ক্রসিং!

0 55

আবদুল্লাহ আল মামুন


নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের পর বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও নগরের গুরুত্বপূর্ণ মোড়গুলোতে জেব্রা ক্রসিং আঁকছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন। কিন্তু জেব্রা ক্রসিং ব্যবহার করে নিরাপদে পথচারী পারাপারের জন্য এসব মোড়ে নেই ট্রাফিক পুলিশ ও সিগন্যাল। যথারীতি জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলন্ত গাড়ির সামনে হাত উঁচিয়ে সড়ক পার হচ্ছেন পথচারীরা। ফলে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের ফলে আঁকা এসব জেব্রা ক্রসিং কোনো কাজে আসছে না। যত্রতত্র আঁকা এসব জেব্রা ক্রসিংকে আইওয়াশ বলছেন বিশেষজ্ঞরা।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা বলেন, এখন থেকে পথচারী যত্রতত্র সড়ক পার না হয়ে জেব্রা ক্রসিং দিয়ে পার হবে। এতে নগর পরিবহন ব্যবস্থায় একটি শৃঙ্খলা আসবে। এক্ষেত্রে মানুষকে সচেতন হতে হবে। ট্রাফিক পুলিশ ও সিগন্যাল লাইট না থাকলেও চালকরা দূর থেকে জেব্রা ক্রসিং দেখে গাড়ির গতি কমিয়ে যাত্রী পারাপারের সুযোগ করে দেবে।
সিগন্যাল ছাড়া এসব জেব্রা ক্রসিং কতটা কার্যকর হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আগে লোকজন যত্রতত্র সড়ক পার হতো। এখন একটি পয়েন্ট দিয়ে সড়ক পার হবে। এরপরও কার্যকর না হলে সমস্যার সমাধানে যা করণীয় তা করা হবে।
এ প্রসঙ্গে পরিবহন এবং সড়ক নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক শামসুল হক বলেন, এসব আইওয়াশ। জেব্রা ক্রসিংয়ের পূর্বশর্তই হচ্ছে ট্রাফিক সিগন্যাল। যেখানে ট্রাফিক সিগন্যাল থাকবে না, সেখানে জেব্রা ক্রসিং দিয়ে কী হবে? এগুলো অপেশাদার লোকজনের কাজ। তারা বোঝে না এটা করার পর কোনো সুফল মিলবে কিনা। তাদের ইচ্ছে হলো একটা কিছু করে ফেলল। এটা আদৌ জনগণের কাজে আসবে কিনা সেটা তারা ভেবে দেখেন না। এ কারণে কোনো কাজ করতে হলে পেশাদার লোক দিয়ে করতে হবে।
তিনি বলেন, এখনকার দিনে পথচারী পারাপারে প্রকৌশলগত সমাধান হলো, মানুষ যেভাবে পার হতে চায়, সেভাবেই তাকে পার হতে দাও। সেটা নিরাপদে কীভাবে করতে হবে তার ব্যবস্থা করো। পুরো বিশ্বে এখন এই পদ্ধতিই সর্বজনস্বীকৃত, নিরাপদ ও গ্রহণযোগ্য। কারণ, মোড়গুলো পথচারী ও গাড়ি উভয়ের জন্য। দুই পক্ষকে সহাবস্থানে রাখার জন্য দরকার কার্যকর ট্রাফিক সিগন্যাল ব্যবস্থা। গাড়ি যখন থামবে, পথচারী তখন পার হবে।
সরেজমিনে নগরের বিভিন্ন মোড় ঘুরে দেখা গেছে, পথচারীরা যত্রতত্র পুরনো পদ্ধতিতে চলন্ত গাড়ির সামনে হাত উঁচিয়ে পার হচ্ছে সড়ক। ট্রাফিক পুলিশ ও সিগন্যাল ব্যবস্থা না থাকায় নতুন আঁকা জেব্রা ক্রসিংগুলো দিয়েও একইভাবে পার হচ্ছে পথচারীরা। নগরের জামালখানে ডা. খাস্তগীর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে সদ্য আঁকা জেব্রা ক্রসিং দিয়ে হাত উঁচিয়ে পার হচ্ছেন শিক্ষার্থীরা। নগরের জামালখান বৌদ্ধ মন্দির মোড়ের ন্যাশনাল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, হামজারবাগ রহমানিয়া উচ্চ বিদ্যালয় ও পাঠানটুলী খান সাহেব সিটি করপোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে জেব্রা ক্রসিং থাকলেও পথচারী পারাপারের সময় থামছে না গাড়ি। এসব জায়গায় নেই কোনো ট্রাফিক পুলিশ। ট্রাফিক সিগন্যাল ব্যবস্থাও নেই। ফলে শিক্ষার্থীরা সেই পুরনো পদ্ধতিতে চলন্ত গাড়ির সামনে হাত উঁচিয়ে পার হচ্ছে সড়ক।
বৌদ্ধ মন্দির মোড়ে স্কুলপড়ুয়া শিক্ষার্থীকে নিয়ে সড়ক পার হচ্ছিলেন রহিমা বেগম। তিনি বলেন, ‘স্কুল থেকে আমার ছেলেকে নিতে এসেছি। আগে স্কুলের সামনে জেব্রা ক্রসিং ছিল না। এখন জেব্রা ক্রসিং এঁকে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এখানে লোকজন পার হওয়ার সময় কোনো গাড়ি থামে না। কোনো সিগন্যাল বাতিও নেই এখানে। আগের মতো গাড়ির সামনে হাত দেখিয়ে ছেলেকে নিয়ে রাস্তা পার হতে হচ্ছে।’
ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক (প্রশাসন-উত্তর) সুভাষ চন্দ্র দে বলেন, যত জায়গায় জেব্রা ক্রসিং আঁকা হয়েছে তত জায়গায় ট্রাফিক পুলিশ দেওয়ার মতো জনবল নেই। তাই বড় মোড়গুলোতে জেব্রা ক্রসিংয়ের পেছনে গাড়ির সিগন্যাল দিতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। যাতে পথচারীরা নিরাপদে পার হতে পারেন। বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সামনে আঁকা জেব্রাক্রসিংগুলোতে কোনো লোকজনকে পার হতে দেখলে চালক নিজেই গাড়ি থামিয়ে পথচারী পার হওয়ার সুযোগ করে দেবেন। এক্ষেত্রে চালকদের মধ্যে সচেতনতা গড়ে তোলা হবে।

NO COMMENTS

Leave a Reply