Home মূল কাগজ পরিকল্পিত সবুজ আবাসন গড়ার প্রত্যয়ে রিহ্যাব উইন্টার ফেয়ার ২০১৯

পরিকল্পিত সবুজ আবাসন গড়ার প্রত্যয়ে রিহ্যাব উইন্টার ফেয়ার ২০১৯

মির্জা মাহমুদ আহমেদ

পরিকল্পিত সবুজ আবাসন গড়ার প্রত্যয়ে শুরু হয়েছে রিহ্যাব উইন্টার ফেয়ার ২০১৯। রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র (বিআইসিসি) প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত আবাসন খাতের সবচেয়ে বড় এ মেলার আয়োজক রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (রিহ্যাব)। ২৪ ডিসেম্বর মঙ্গলবার সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের ‘হল অব ফেমে’ পাঁচ দিনব্যাপী এ মেলার উদ্বোধন করেন গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম। মেলা চলবে ২৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শ. ম. রেজাউল করিম বলেন, ‘বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের মহাসড়কে। সেই উন্নয়নে অবকাঠামোগত দিক দিয়ে রিহ্যাব অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।’
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সেবা সহজীকরণের নির্দেশনা স্মরণ করে তিনি বলেন, ‘প্ল্যান পাস করাতে আগে ১৬টি স্তর অতিক্রম করতে হতো। এখন সেটা চার স্তরে নামিয়ে আনা হয়েছে। বিদ্যমান চারটি স্তরেও যাতে ভোগান্তি না হয় সেজন্য অটোমেশন পদ্ধতি চালু করা হয়েছে। প্ল্যান পাস ছাড়াও ভূমির ছাড়পত্র ও মিউটেশন আগের থেকে দ্রুত সময়ে ও সহজে করা যাচ্ছে।’
আবাসন ব্যবসায়ী ও ক্রেতাদের দীর্ঘদিনের প্রত্যাশিত রেজিস্ট্রেশন ফি কমানো বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আইন মন্ত্রণালয়ে রেজিস্ট্রেশন ফি কমানো-সংক্রান্ত ভেটিং শেষ হয়েছে। আশা করি আগামী সংসদ এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসবে।’
আবাসন ব্যবসায়ীরা যাতে সরকারি টেন্ডারে অংশ নিতে পারেন সেজন্য অচিরেই ‘পাবলিক প্রকিউরমেন্ট রুলস’ সংশোধন করা হবে বলেও তিনি জানান।
অসাধু ও প্রতারক আবাসন ব্যবসায়ীরা রিহ্যাবের সুনাম ক্ষুণ করছে উলে­খ করে তিনি এদের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা গড়ে তুলতে রিহ্যাবকে আহবান জানান। সকলের জন্য আবাসন নিশ্চিত করতে রিহ্যাব-সদস্যদের গুরুত্বগূর্ণ ভূমিকা পালনের ব্যাপারেও আহবান জানান মন্ত্রী।
সরকারি আবাসন প্রকল্পে বিদেশি বিনিয়োগকারীদের পাশাপাশি দেশিয় বিনিয়োগকারীরা যাতে বিনিয়োগ করতে পারে সেই সুযোগ সৃষ্টি করা হবে উলে­খ করে গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী বলেন, ‘তুরাগ নদীর পাড়ে নতুন স্যাটেলাইট সিটি, কেরানীগঞ্জ স্যাটেলাইট সিটি, ঝিলমিল প্রকল্প, পূর্বাচল এবং উত্তরা থার্ড ফ্রেজে বিদেশি বিনিয়োগকারীর পাশাপাশি যাতে দেশিয় ব্যবসায়ীরা বিনিয়োগ করতে পারেন সেই ব্যবস্থা নেয়া হবে।’
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন রিহ্যাব প্রেসিডেন্ট আলমগীর শামসুল আলামিন (কাজল)। রিহ্যাব সদস্য এবং ক্রেতাদের মধ্যে সেতুবন্ধ তৈরি করতে এই ফেয়ার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করেন তিনি।
অনুষ্ঠানে রিহ্যাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট (প্রথম) লিয়াকত আলী ভূঁইয়া, ভাইস প্রেসিডেন্ট (২) মো. আনোয়ারুজ্জামান, ভাইস প্রেসিডেন্ট কামাল মাহমুদ, ভাইস প্রেসিডেন্ট (ফিন্যান্স) ও ফেয়ার স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) প্রকৌশলী মোহাম্মদ সোহেল রানা এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. আব্দুল কৈয়ূম চৌধুরীসহ রিহ্যাব পরিচালকবৃন্দ ও অন্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

ক্রেতা-দর্শনার্থীদের জন্য উম্মুক্ত মেলার দ্বার
উদ্বোধনের পর বুধবার বেলা দুইটা থেকে ক্রেতা-দর্শনার্থীদের জন্য উম্মুক্ত হয় মেলার দ্বার। বাকি দিনগুলোতে সকাল ১০টা থেকে রাত নয়টা পর্যন্ত ক্রেতা-দর্শনার্থীরা মেলায় প্রবেশ করতে পারবেন। আয়োজক প্রতিষ্ঠান রিহ্যাব জানিয়েছে, প্লট-ফ্ল্যাট-বাণিজ্যিক স্পেসসহ গৃহায়ন-সংক্রান্ত পণ্যের বিপুল সমাহার রয়েছে এবারের আয়োজনে। পাশাপাশি নির্মাণ পণ্যসামগ্রীরও প্রদর্শনী থাকছে। আর ক্রেতাদের সুবিধার জন্যই থাকছে অর্থলগ্নিকারী প্রতিষ্ঠানের স্টল। আয়োজকদের আশা, মেলার প্রভাবে আবাসন খাতে গতির সঞ্চার হবে।
এবারের ফেয়ারে মোট ২৩০টি স্টল রয়েছে। এ বছর ৩০টি বিল্ডিং ম্যাটেরিয়ালস ও ১৪টি অর্থলগ্নিকারী প্রতিষ্ঠানকে অংশগ্রহণ করার সুযোগ করে দিয়েছে রিহ্যাব।
মেলায় দুই ধরনের টিকিট রয়েছে-সিঙ্গেল এন্ট্রি ও মাল্টিপল এন্ট্রি। সিঙ্গেল এন্ট্রি টিকিট ৫০ টাকা এবং মাল্টিপল এন্ট্রি টিকিটের প্রবেশ মূল্য ১০০ টাকা। মাল্টিপল এন্ট্রি টিকিট দিয়ে একজন দর্শনার্থী মেলা চলাকালীন পাঁচবার প্রবেশ করতে পারবেন। এন্ট্রি টিকিট বিক্রি থেকে প্রাপ্ত সম্পূর্ণ অর্থ দুঃস্থদের সাহায্যার্থে ব্যয় করা হবে।
মেলার এন্ট্রি টিকিটের র‌্যাফল ড্রতে রয়েছে আকর্ষণীয় মূল্যবান পুরস্কার। মেলার শেষ দিন, ২৮ ডিসেম্বর রাত ৯টায় র‌্যাফল ড্র অনুষ্ঠিত হবে। র‌্যাফল ড্রর ১ম পুরস্কার হিসেবে রয়েছে একটি প্রাইভেট কার, ২য় পুরস্কার একটি মোটরসাইকেল, ৩য় পুরস্কার একটি ফ্রিজ, ৪র্থ পুরস্কার একটি ৪৩ ইঞ্চি এলইডি টেলিভিশন, ৫ম পুরস্কার একটি ওয়াশিং মেশিন, ৬ষ্ঠ পুরস্কার একটি ডিপ ফ্রিজ, ৭ম ও ৮ম পুরস্কার একটি করে মোবাইল ফোন, ৯ম পুরস্কার একটি মাইক্রোওয়েভ ওভেন এবং ১০ম পুরস্কার একটি এয়ার-কুলার। এ ছাড়া থাকবে আরও পাঁচটি পুরস্কার। www.rehabwinterfair2019.com ওয়েবসাইটে পুরস্কার বিজয়ীদের নাম প্রকাশ করা হবে।
উলে­খ্য, ২০০১ সাল থেকে রিহ্যাব ঢাকায় আবাসন মেলা শুরু করে। এ ছাড়া চট্টগ্রামে ১২বার মেলা সফলভাবে সম্পন্ন করেছে রিহ্যাব। ২০০৪ সাল থেকে রিহ্যাব বিদেশে হাউজিং ফেয়ার আয়োজন করে আসছে। এ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে ১২ বার, যুক্তরাজ্য, দুবাই, ইতালির রোম, কানাডা, সিডনি ও কাতারে একবার করে এবং দুবাইতে দু’বার ‘রিহ্যাব হাউজিং ফেয়ার’ আয়োজন করা হয়। এসব ফেয়ার আয়োজনের মাধ্যমে রিহ্যাব দেশে ও বিদেশে গৃহায়ন-শিল্পের বাজার সৃষ্টি ও প্রসারের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখছে। অন্যদিকে প্রবাসী ক্রেতারা যেমন দেশে তাদের পছন্দের আবাসন খুঁজে পেয়েছে, পাশাপাশি এই ফেয়ারের মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রাও অর্জিত হচ্ছে। শুধু তা-ই নয়, দেশের অর্থনীতি সমৃদ্ধ করার পাশাপাশি গৃহায়ন-শিল্প এবং লিংকেজ-শিল্প বিকাশেও অনন্য ভূমিকা পালন করে চলেছে রিহ্যাব।

NO COMMENTS

Leave a Reply