Home বাজার দর ইন্টেরিয়ার প্রশান্তিময় শোবার ঘর

প্রশান্তিময় শোবার ঘর

ফারিয়া মৌ

ব্যস্ত জীবনের সব কিছুকে ছাপিয়ে যখন মানুষ আপন নীড়ে ফিরে আসে, তখন শোবার ঘরটাই যেন হয়ে ওঠে ক্লান্তি নিবারণের একমাত্র উপলক্ষ। তাই শোবার ঘরের সাজসজ্জায় প্রয়োজন খানিকটা বাড়তি মনোযোগ। অপ্রয়োজনীয় বা অতিরিক্ত আসবাবপত্র এ ঘরে না-থাকাই ভালো। এতে ঘরটা খোলামেলা থাকবে, ফলে বাতাস চলাচলে সুবিধা হবে।

আসবাবপত্রের ব্যবহার
শোবার ঘরের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে বিছানা। পাশাপাশি আলমারি, ড্রেসিং টেবিল, ওয়ারড্রব ইত্যাদি ফার্নিচারও এই ঘরেই স্থান পায়। তবে যতটা সম্ভব কম আসবাবপত্র ব্যবহার করলে এ ঘরে স্বাচ্ছন্দ্যে চলাচল করা সম্ভব।

আলোর ব্যবহার
শোবার ঘরের জন্য হাল্কা ও উষ্ণ আলোর ব্যবহারই আরামদায়ক। চাইলে ঘুমানোর সময় মৃদু আলোর ব্যবহার করতে পারেন। সম্ভব হলে ঘরের জানালা বন্ধ রাখতে হয়, এমন স্থানে কোনো আসবাব না রাখাই ভালো।

দেয়ালের রঙ
হালকা অথচ উজ্জ্বল দেয়ালে এমন রঙ ব্যবহার করা ভলো। এতে আপনার ঘরের পরিবেশটা বেশ মোহনীয় লাগবে। উজ্জ্বল সাদা, চাপা সাদা, হাল্কা গোলাপি, হাল্কা সবুজ, নীল ইত্যাদি রঙ আপনার শোবার ঘরের জন্য মানানসই। আপনার ব্যক্তিগত রুচির সাথে যায় এমন রঙটিই বেছে নিন।

দেয়ালসজ্জা
শোবার ঘরের সবচেয়ে দীর্ঘ দেয়ালে আপনার পরিবারের সবচেয়ে মিষ্টি মুহূর্তটিকে বড় কোনো ফ্রেমে বাঁধিয়ে রাখতে পারেন, যা আপনাদের প্রিয় সময়গুলোকে মনে করিয়ে দেবে। এছাড়া চাইলে অন্য কোনো শৌখিন কিছু দেয়ালসজ্জার উপকরণ হতে পারে। তবে লক্ষ্য রাখবেন তা যেন দেখতে ভালো লাগে এবং আপনার ঘরের আনুসঙ্গিক জিনিসগুলোর সাথে মানানসই হয়।

অন্যান্য অনুষঙ্গ
আপনার দেয়ালের রঙের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ রঙের বিছানার চাদর, দরজা-জানালার পর্দা ব্যবহার করবেন। সম্ভব হলে পারিবারিক আড্ডার জন্য মেঝেতে বসার ব্যবস্থা করতে পারেন।

পরিচ্ছন্নতা
এই ঘরটিকে সবসময় পরিচ্ছন্ন রাখা উচিত। আর হাল্কা সুগন্ধির ব্যবহার আপনার শোবার ঘরকে করতে পারে আরো আকর্ষণীয়।

NO COMMENTS

Leave a Reply