Home ফিচার সিনেমা-প্রেমিদের সুবিধার্থে ছড়িয়ে যাচ্ছে স্টার সিনেপ্লেক্স

সিনেমা-প্রেমিদের সুবিধার্থে ছড়িয়ে যাচ্ছে স্টার সিনেপ্লেক্স

0 83

সোহরাব শান্ত

রাজধানীর সিনেপ্রেমীদের জন্য নতুন তিনটি শাখা খোলার কাজ করছে দেশের সবচেয়ে অভিজাত ও জনপ্রিয় মাল্টিপ্লেক্স‘স্টার সিনেপ্লেক্স’ কর্তৃপক্ষ। এরই মধ্যে ধানমন্ডির সীমান্ত সম্ভারে (সাবেক রাইফেল স্কয়ার) স্টার সিনেপ্লেক্সের শাখা চালু হয়েছে। এবার মহাখালী ও মিরপুরে মাল্টিপ্লেক্স নির্মাণ করা হচ্ছে। এ লক্ষ্যে পৃথক চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। স্টার সিনেপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে এসব তথ্য।
সূত্রমতে, মিরপুরে স্টার সিনপ্লেক্সের চেইন চালু হবে ২ নম্বর সেকশনের সনি সিনেমা হলের নতুন নির্মিত ভবনে, যা আগামী ঈদুল আযহার আগে উদ্বোধন হবে। রাজধানীর মহাখালীতে নবনির্মিত এসকেএস (সেনাকল্যাণ সংস্থা) টাওয়ারে আগামী মে মাসে নিজেদের আরেকটি শাখা চালু করা হবে বলে জানিয়েছে স্টার সিনেপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ।
এর আগে গত ২৬ জানুয়ারি ধানমন্ডির সীমান্ত সম্ভারে নিজেদের শাখা চালু করে স্টার সিনেপ্লেক্স। রাজধানীর ধানমন্ডি, জিগাতলাসহ আশেপাশের এলাকার দর্শকদের কথা চিন্তা করে অনেকদিন থেকেই এখানে হল নির্মাণের পরিকল্পনা করছিল স্টার সিনেপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ। দেশের কোনো সিনেপ্লেক্সের এটিই প্রথম শাখা। ২০১৯ সালের মধ্যে ঢাকার উত্তরা, পূর্বাচলসহ বিভিন্ন স্থানে আরও ২০টির মতো হল নির্মাণ এবং পর্যায়ক্রমে দেশব্যাপী ১০০টি হল নির্মাণে স্টার সিনেপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ পরিকল্পনা নিয়েছে বলেও জানা গেছে।
স্টার সিনেপ্লেক্সের মিডিয়া মার্কেটিং বিভাগের সিনিয়র ম্যানেজার মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ কারিকাকে জানিয়েছেন, ধানমন্ডির সীমান্ত সম্ভারে সম্প্রতি চালু হওয়া নতুন শাখায় বসুন্ধরা সিটির মূল শাখার মতোই শো চলছে। সেখানে দর্শক সমাগমও ভালো।
মহাখালী ও মিরপুরে স্টার সিনেপ্লেক্সের পৃথক দুটি শাখা চালুর ব্যপারে চুক্তি স্বাক্ষরের বিষয়টি নিশ্চিত করে মেজবাহ উদ্দিন জানান, রাজধানীর উত্তরা ও পূর্বাচলে স্টার সিনপ্লেক্সের চেইন চালুর পরিকল্পনা রয়েছে। উত্তরার শাখাটি আগামী বছর চালু করা হতে পারে।
তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের ঢাকা ও ঢাকার বাইরে কয়েকটি শাখা করার পরিকল্পনা রয়েছে। সেই অনুযায়ী আমরা এগোচ্ছি। স্টার সিনেপ্লেক্সের নতুন শাখায় আন্তর্জাতিক-মানসম্পন্ন নান্দনিক পরিবেশ, সর্বাধুনিক প্রযুক্তি-সম্বলিত অ্যাটমস ডলবি সাউন্ড সিস্টেম, সিলভার স্ক্রিনসহ একটি পূর্ণাঙ্গ মাল্টিপ্লেক্সের সব ধরনের সুবিধা থাকবে।
স্টার সিনেপ্লেক্সের সীমান্ত সম্ভার শাখায় দর্শক-সাড়া ভালো জানিয়ে মেজবাহ উদ্দিন বলেন, ‘আমাদের টার্গেট পিপলস ছিল ধানমন্ডি-ঝিগাতলার লোকজন। তারা আসছেন। নতুন হিসেবে যতটুকু আশা ছিল, সেই অনুযায়ী দর্শক হচ্ছে। ধীরে ধীরে মানুষ জানবে। আমরা আশা করছি তখন আরও বেশি দর্শক হবে।’
স্টার সিনেপ্লেক্সের একেকটা হলে ২৬০ জন দর্শক বসার সুবিধা আছে উল্লেখ করে তিনি জানান, আগামী ঈদুল আযহার আগেই মিরপুরের সিনেপ্লেক্সটি উদ্বোধন হবে। মিরপুরের এলাকার ভৌগোলিক অবস্থান বিবেচনা করে সেখানে টিকিটের দাম একটু কম রাখা হবে। মহাখালীর সিনেপ্লেক্স আগামী ঈদুল ফিতরের আগেই উদ্বোধন হবে।
‘যেখানেই শাখা হোক, আমাদের হল ও শো পরিচালনার ধরনে কোনো পরিবর্তন আসবে না। প্রতিটা সিনেপ্লেক্সে তিনটা করে হল থাকছে। শো-টাইম বসুন্ধরা সিটি শাখার মতোই থাকবে। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত একেকটা হলে চারটা করে শো থাকবে। সব জায়গায়ই বাংলা ও ইংরেজি সিনেমা থাকবে।’ যোগ করেন তিনি।
প্রসঙ্গত, ২০০৪ সালের ৮ অক্টোবর রাজধানীর পান্থপথের বসুন্ধরা সিটি শপিং মলে প্রথম যাত্রা শুরু করে স্টার সিনেপ্লেক্স। হলিউডের নতুন সিনেমার পাশাপাশি দেশীয় সিনেমাও নিয়মিত প্রদর্শন করছে মাল্টিপ্লেক্সটি।

NO COMMENTS

Leave a Reply