Home ফিচার শিখতে চাইলে সাঁতার

শিখতে চাইলে সাঁতার

0 380

কারিকা প্রতিবেদক
শীত বিদায় নেয়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রকৃতিতে লেগেছে গরমের ছটা। এমন দিনে দুরন্ত কিশোর মন চায় সারা দুপুর পুকুরে সাঁতরে, ঝাপাঝাপি করে চোখ লাল করে বাড়ি ফিরতে। আর মাায়ের বকুনির ভয়ে জড়সড় হয়ে থাকতে। কিন্তু ব্যস্ত নাগরিক জীবনে পুকুরে ঝাপাঝাপি আর সাঁতরে চোখ লাল করার সুযোগ কোথায়? সেই আক্ষেপ অনেকটাই ঘোচাতে পারে হাল আমলের নাগরিক সুইমিং পুল। গরমের হাসফাঁস থেকে বাঁচতেই শুধু নয় নদী মাতৃক বাংলাদেশে নিজের ও শিশুর নিরাপত্তার জন্যও সাঁতার শেখা প্রয়োজন।
এছাড়া নিয়মিত সাঁতার কাটা একটি ভালো ব্যায়াম। যা জীবনের কার্যক্ষমতা বাড়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এক গবেষণায় জানা গেছে, যে ব্যক্তি নিয়মিত সাঁতার কাটেন তার অকাল মৃত্যুর আশঙ্কা সাধারণ মানুষের চেয়ে অনেক কম। সপ্তাহে আড়াই ঘণ্টাও যদি কেউ নিয়মিত সাঁতার কাটেন তবে উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগের ঝুঁকি অনেক কমে যায়। এছাড়া মেদভুঁড়ি কমাতে এবং মানসিক প্রশান্তি বাড়াতেও সাহায্য করে সাঁতার।
রাজধানী ঢাকা ও বন্দরনগরী চট্টগ্রামে অনেক স্পোর্টিং ক্লাব, জিম এবং অভিজাত হোটেলে ইচ্ছে মতো সাঁতার কাটার পাশাপাশি সেখানে মিলবে সাঁতার শেখারও সুযোগ।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সুইমিং পুল
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সুইমিংপুলে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি বহিরাগতরাও সাঁতার শিখতে পারবেন। শিশুদের সাঁতার শেখার ব্যবস্থাও আছে। সাত বছরের উপরের শিশুরা সাঁতার শিখতে পারবে এখানে। পুরুষ ও নারীদের জন্য আলাদা প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা আছে। কোর্সের মেয়াদ একমাস। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য ভর্তি ফি ১০০ টাকা। সপ্তাহে ২ দিন করে মাসে মোট ৮ দিন প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক,কর্মকর্তা ও তাদের পরিবারবর্গের জন্য ভর্তি ফি ২৬০ টাকা। সপ্তাহে ২ দিন করে মাসে ৮ দিন প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। বহিরাগতদের ভর্তি ফি ২০০০ টাকা। তাদের জন্য সপ্তাহে ৪ দিন করে মাসে ১৬ দিন প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়।
বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম সুইমিংপুল
এই সুইমিংপুলে বর্তমানে শুধু ছেলেরা সাঁতার শিখতে পারবেন। সাত বছরের ওপরে যেকোনো বয়সীরা ভর্তি হতে পারবেন। প্রথম মাসে দুই হাজার টাকা দিতে হবে। পরের মাস থেকে মাসিক দেড় হাজার টাকা। এই সুইমিংপুলে সপ্তাহে পাঁচ দিন সাঁতার শেখানো হয়।
মিরপুর জাতীয় সুইমিং কমপ্লেক্স
মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামের ঠিক পাশেই রয়েছে সাঁতার শেখার একটি দারুণ জায়গা। রবি ও সোমবার বাদে সুইমিংপুলটি প্রতিদিন খোলা। এখানে ছেলে, মেয়ে যে কেউ সাঁতার শিখতে পারবেন। ভর্তি ফি ২ হাজার ৫০০ টাকা। পরের মাস থেকে নিয়মিত সাঁতার শিখতে ২ হাজার টাকা। দৈনিক ৫০ টাকা দিয়ে যে কেউ সাঁতার কাটতে পারবেন।
সুলতানা কামাল মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্স
ধানমন্ডির সুলতানা কামাল মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্সে মূলত মেয়েরা সাঁতার শিখতে পারে। তবে সাড়ে সাত বছরের কম বয়সী ছেলেদেরও সাঁতার শিখার ব্যবস্থা আছে। ভর্তি ফি দুই হাজার টাকা এবং প্রতি মাসে দিতে হবে দেড় হাজার টাকা করে।
হোটেল প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও
হোটেল প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও এ রয়েছে আর্ন্তজাতিক মানের ২৫ মিটার লম্বা সুইমিং পুল।
শুক্র থেকে সোমবার ছেলে-মেয়েদের আলাদাভাবে সাঁতার শেখানো হয়। ১৬টি ক্লাসের জন্য যেকোন বয়সীদের ভর্তি ফি ২১ হাজার ৫০০ টাকা। ৬ থেকে ১২ বছর বয়সীদের জন্য ভর্তি ফি ১৭ হাজার ৫০০ টাকা। একই পরিবারের দুইজন একসাথে শিখলে প্রতিজনের জন্য দুই হাজার টাকা ছাড়।

অফিসার্স ক্লাব

ঢাকা অফিসার্স ক্লাবে পাঁচ বছর বয়স থেকে যে কেউ সাঁতার শেখার জন্য ভর্তি হতে পারবেন। ভর্তি ফি পাঁচ হাজার টাকা। সাঁতারের পোশাক নিতে চাইলে ছেলেদের অতিরিক্ত ৭০০ টাকা এবং মেয়েদের ১১০০ টাকা দিতে হবে। বুধবার ছাড়া সপ্তাহের অন্য ছয় দিন ছেলে ও মেয়েদের আলাদা কোর্সে সাঁতার শেখানো হয়।

ক্যাডেট কলেজ ক্লাব

গুলশানের ক্যাডেট কলেজ ক্লাবে ছেলে ও মেয়ে যে কেউ সাঁতার শিখতে পারে। সাঁতার শেখার জন্য মাসিক ফি ৪৬০০ টাকা। সপ্তাহের সাতদিনই এখানে সাঁতার শেখা যায়।

হোটেল রেসিডন ব্লু বে চট্টগ্রাম

চট্টগ্রামের রেডিসন ব্লু বে হোটেলের আন্তর্জাতিক মানের সুইমিংপুলে সাঁতার কাটার এবং সাঁতার শেখার ব্যবস্থা আছে। রেডিসন ব্লু হোটেলে হেলথ ক্লাবের সদস্য হয়ে সাঁতার শেখা যায়।
মাসিক সদস্য ফি পিক আওয়ারে (সকাল সাড়ে ৬ টা থেকে সাড়ে ১০ টা পর্যন্ত) ১২ হাজার ৫০০ টাকা। কাপলদের ক্ষেত্রে মাসিক ১৮০০০ টাকা। অফ পিক আওয়ারে (সকাল ১০ টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা) মাসিক ফি ৮৫০০ টাকা কাপলদের ক্ষেত্রে ১২৫০০ টাকা।

এছাড়াও ওয়েস্টিন ঢাকা হোটেল, লেকশোর হোটেল, গুলশানের ইয়ুথ ক্লাব, তেজগাঁও শিল্প এলাকার ম্যানপাওয়ার সুইমিংপুল, বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশন, রামপুরার আশরাফি সুইমিংপুল অ্যান্ড ফিটনেস, পিলখানায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ সুইমিং কমপ্লেক্স, পুরানা পল্টনের আইভি রহমান সুইমিং কমপ্লেক্সসহ রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় সুইমিং শেখা ও নিয়মিত সাঁতার করার সুযোগ রয়েছে।
সাঁতারের জন্য প্রয়োজনীয় অনুষঙ্গ

সাঁতার শিখতে পোশাক, চশমা, নোজ ক্লিপ, ইয়ার প্লাগসহ আরও বিভিন্ন জিনিসপত্র যেমন কিকবোর্ড, পুলবয়েজ, ফিন,কাঁধব্যাগ কিনতে পারেন। সাঁতারের সময় পায়ের দিকে লাগানো হয় কিকবোর্ড। এটি পানিতে ভেসে থাকতে সহায়তা করে, এর দাম পড়বে ৫৫০ থেকে এক হাজার ৭০০ টাকা। দ্রুতগতিতে ও সাবলীলভাবে সাঁতার কাটার জন্য ফিন ব্যবহার করতে হয়। সাঁতারুর পায়ে মাছের পাখনার মতো ফিন লাগানো হয়। বিভিন্ন সাইজের ফিনের দাম পড়বে এক হাজার ২০০ থেকে আট হাজার টাকা। সাবলীলভাবে সাঁতারের জন্য পুলবয়েজ ব্যবহার করা হয় এর দাম পড়বে ৩০০ থেকে এক হাজার ২০০ টাকা। হ্যান্ড প্যাডেলের দাম পড়বে ৬০০ থেকে আড়াই হাজার টাকা । সাঁতারের প্রয়োজনীয় জিনিসগুলো গুলশান সিটি করপোরেশন মার্কেট, যমুনা ফিউচার পার্ক, বসুন্ধরা সিটি, গুলিস্তান স্পোর্টস সরঞ্জামের দোকানে কিনতে পাওয়া যায়।

NO COMMENTS

Leave a Reply