Home মূল কাগজ নগরোদ্যান হাতিরঝিলে সিডনি অপেরা হাউসের আদলে ‌নির্মিত হবে ‘ঢাকা অপেরা’

হাতিরঝিলে সিডনি অপেরা হাউসের আদলে ‌নির্মিত হবে ‘ঢাকা অপেরা’

কারিকা প্রতিবেদক
সিডনির বিখ্যাত অপেরা হাউসের আদলে রাজধানীর হাতিরঝিলে নির্মিত হবে ‘ঢাকা অপেরা’। অস্ট্রেলিয়ার সিডনি শহরের অপেরা হাউসের মতোই মনোমুগ্ধকর বিনোদন আর সৌন্দর্য উপভোগ করা যাবে হাতিরঝিলে।
১০ একর জায়গার ওপর নির্মিত এ প্রকল্পটি হবে আন্তর্জাতিকমানের বিনোদন ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় এ নিয়ে কাজ শুরু করেছে শিল্পকলা একাডেমি। প্রকল্পের অংশ হিসেবে ইতোমধ্যে হাতিরঝিলের ওপর ভাসমান উন্মুক্ত মঞ্চ তৈরি করা হয়েছে। এখানে একই সঙ্গে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করতে পারবেন দর্শকরা। প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় যৌথভাবে কাজ করছে। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সহায়তায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোর অপেরা হাউসের অবকাঠামো নির্মাণ করছে। এখানে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করা যাবে। ছাদখোলা মুক্তমঞ্চের কাছেই ১০ তলা অত্যাধুনিক গাড়ি পার্কিং ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে। এ ভবনে গাড়ি পার্কিংয়ের সুবিধা ছাড়াও একটি সম্মেলন কক্ষ থাকবে। এতে থাকবে হাতিরঝিলের ইতিহাস-সংক্রান্ত জাদুঘর, রেস্টুরেন্ট ও অন্যান্য সুবিধা।
সূত্র জানায়, ৯ দশমিক ৪৭৭ একর জমির ওপর নির্মিত হবে হাতিরঝিল সাংস্কৃতিক কেন্দ্র। প্রায় ৪ লাখ বর্গফুট জায়গার ওপর এ সাংস্কৃতিক কেন্দ্র প্রণয়নের জন্য ইতোমধ্যে একাধিক দেশি-বিদেশি স্থপতি কাজ করছেন। এতে ৩ থেকে ৫ হাজার দর্শক ধারণক্ষমতাসম্পন্ন মূল মিলনায়তন থাকবে। এ ছাড়াও থাকবে আরও দুটি মিনি মিলনায়তন। যে দুটির ধারণক্ষমতা হবে ৩০০ থেকে ৫০০ দর্শকের। ঝড়বৃষ্টি বা রোদ থেকে রক্ষার জন্য উন্মুক্ত মঞ্চের ওপরে ছাউনি থাকবে। যার ফলে সারা বছর দিন-রাত এখানে বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠান করা যাবে বলে জানিয়েছেন প্রকল্প-সংশ্লিষ্টরা। প্রকল্প-এলাকায় থাকবে একটি বিশেষ স্যুভিনিয়র শপ। যেখানে বাংলাদেশ ও বাঙালি জাতির নানা ধরনের সাংস্কৃতিক ও ঐতিহাসিক ঐতিহ্য প্রদর্শনীর জন্য তুলে ধরা হবে। এখানে সমকালীন বিভিন্ন চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর ব্যবস্থা থাকবে। এ ছাড়া নতুন শিল্পীদের জন্য প্রশিক্ষণ একাডেমিও গড়ে তোলা হবে ঢাকা অপেরা হিসেবে নির্মিত হাতিরঝিল সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে।
গত ১ জুলাই ২৩তম জাতীয় চারুকলা প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সংস্কৃৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ বলেন, ‘হাতিরঝিলে ১০টি মিলনায়তনসমৃদ্ধ ঢাকা অপেরা হাউস নির্মাণ করা হবে। এটি হবে শিল্পের বিকাশে এই সরকারের আমলে আমাদের সবচেয়ে বড় অর্জন। শিল্পের সব ধরনের শাখায় বিচরণের পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা সেখানে থাকবে।’
তিনি আরও বলেন, ‘ঢাকা অপেরা হাউসের ডিজাইন ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডিজাইনটি দেখেছেন। চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য শিগগিরই আমরা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করব। তিনি অনুমোদন দিলেই আমরা কাজ শুরু করব। সংস্কৃতির সব শাখাকে সঙ্গে নিয়েই হাতিরঝিলে নির্মিতব্য ঢাকা অপেরা হাউসকে কেন্দ্র করে একটি সাংস্কৃতিক বলয় গড়ে তুলতে চায় সরকার।’

NO COMMENTS

Leave a Reply