Home চট্টগ্রাম ৩০০ কোটি টাকা ব্যয়ে চট্টগ্রামে নির্মাণ হচ্ছে বাস টার্মিনাল

৩০০ কোটি টাকা ব্যয়ে চট্টগ্রামে নির্মাণ হচ্ছে বাস টার্মিনাল

0 65

কমবে যানজট, ভোগান্তি থেকে রেহাই মিলবে যাত্রীদের

আবদুল্লাহ আল মামুন
দীর্ঘ ২৭ বছর পর চট্টগ্রাম নগরে বাস টার্মিনাল নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন। চট্টগ্রাম-রাঙামাটি সড়কের পাশে বালুছড়া কুলগাঁও এলাকায় ১৬ একর জায়গার ওপর এ টার্মিনাল নির্মাণ করা হবে। টার্মিনালটি নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ২৯৭ কোটি টাকা। প্রকল্পটি ২০১৮ সালের ১১ অক্টোবর জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অনুমোদন হয়। টার্মিনালটি নির্মাণে কিছুদিনের মধ্যে জমি অধিগ্রহণ প্রক্রিয়া শুরু হবে বলে জানা গেছে। সর্বশেষ ১৯৯২ সালে চট্টগ্রাম নগরের বহদ্দারহাটে একটি টার্মিনাল নির্মাণ করেছিল চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ।
পার্বত্য চট্টগ্রামের রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও চট্টগ্রামের হাটহাজারী, নাজিরহাট, রাউজান ও ফটিকছড়িতে চলাচলকারী বাস চট্টগ্রাম নগরের অক্সিজেন এলাকা দিয়ে নগরে প্রবেশ করে। এখানে কোনো টার্মিনাল না থাকায় নগরের প্রবেশপথটি এখন অস্থায়ী টার্মিনালে পরিণত হয়েছে। প্রবেশমুখে গাড়ি দাঁড় করিয়ে রাখার কারণে প্রায় সময়ই যানজট লেগে থাকে, দুর্ভোগে পড়তে হয় যাত্রীদের। অক্সিজেনের পাশে বালুছড়া এলাকায় টার্মিনালটি নির্মাণ হলে যানজটের ভোগান্তি থেকে মুক্তি পাবে এ সড়কপথে যাতায়াতকারী যাত্রীরা।
চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন বলেন, ‘নগরে নির্দিষ্ট কোনো টার্মিনাল না থাকায় প্রতিনিয়ত যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। এতে কর্মঘণ্টা নষ্ট হয়ে কোটি কোটি টাকার ক্ষতি হয়। বিষয়টি প্রাধান্য দিয়ে বাস টার্মিনাল নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছি। এ ছাড়াও বন্দরের টোল প্লাজা এলাকায় আরও দুটি বাস-ট্রাক টার্মিনাল নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হবে।’
সিটি করপোরেশন সূত্র জানায়, বাস টার্মিনালটি নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ২৯৭ কোটি টাকা। এর মধ্যে ভূমি অধিগ্রহণ ব্যয় ২৬০ কোটি ৫ লাখ ৫ হাজার টাকা এবং জমি উন্নয়ন ব্যয় ধরা হয়েছে ৩ কোটি ৩৭ লাখ ৩৯ হাজার টাকা। বাস টার্মিনালের অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য ৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা ও ড্রেনেজ ব্যবস্থাসহ ইয়ার্ড নির্মাণের জন্য ২৫ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। টার্মিনালের জন্য নির্ধারিত এলাকায় চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের মালিকানাধীন আট একর জায়গা রয়েছে। বাকি আট একর জায়গা অধিগ্রহণ করা হবে।

যা থাকছে এই বাস টার্মিনালে
টার্মিনালের মুখে নির্মাণ করা হবে চারতলাবিশিষ্ট নান্দনিক ভবন। ভবনের প্রথম তলায় থাকবে সিটি বাস টার্মিনাল ও আন্তঃনগর বাস টার্মিনাল। এছাড়া নির্মাণ করা হবে ২৬টি যাত্রী ওঠা-নামার লেন ও ১৪টি অতিরিক্ত অপেক্ষমাণ লেন, ছাদযুক্ত খোলা হলরুম এবং তথ্যকেন্দ্র। তিনটি স্থানে থাকবে পাঁচটি লিফট। থাকবে এক জোড়া চলন্ত সিঁড়ি ও তিনটি প্রশস্ত সিঁড়ি। প্রতিটি ফ্লোরে পুরুষ ও মহিলাদের জন্য পৃথকভাবে নির্মাণ করা হবে বৃহদাকার ওয়াশরুম। থাকবে ২২টি টিকেট কাউন্টার, ওয়াইফাই সুবিধাসহ যাত্রীদের বসার জায়গা, লাগেজ রুম ও ট্যাক্সি বুকিং বুথ।
টার্মিনালকে ঘিরে গড়ে তোলা হবে প্রাথমিক চিকিৎসাকেন্দ্র, খাবার দোকান, ৩০টি কার ও ট্যাক্সি পার্ক, ছয়টি পেট্রল পাম্প, ৬৯টি বাস ডিপো, ১৭টি ওয়ার্কশপ এবং সার্ভিসিং সেন্টার, চারটি সার্ভিসিং লাইন, আটটি রক্ষণাবেক্ষণ ওয়ার্কশপ লাইন। দ্বিতীয় তলায় থাকবে রেস্তোরাঁ, স্যুভেনির শপ ও এসি বাস যাত্রীদের বসার জায়গা। তৃতীয় তলায় থাকবে বাস কোম্পানিগুলোর বাণিজ্যিক কার্যালয় ও টার্মিনাল ফ্যাসিলিটিজ। চতুর্থ তলায়ও থাকবে বাস কোম্পানিগুলোর ব্যবসায়িক কার্যালয়, প্যানোরোমা রেস্টুরেন্ট, বাস কর্মচারীদের জন্য বোর্ডিং, কমনরুম ও ওয়াশরুম। এছাড়া সাবস্টেশন এবং অন্যান্য টেকনিক্যাল সাপোর্ট স্টেশন থাকবে এখানে।
প্রসঙ্গত, বর্তমানে চট্টগ্রাম নগরের কদমতলী ও বহদ্দারহাটে দুটি বাস টার্মিনাল রয়েছে। কদমতলী থেকে বৃহত্তর নোয়াখালী ও কুমিল্লা এবং বহদ্দারহাট থেকে দক্ষিণ চট্টগ্রাম, বান্দরবান ও কক্সবাজার রুটের বাস চলাচল করে।

NO COMMENTS

Leave a Reply