Home ঠিকানা

0 872
কারিকা ডেস্ক
দ্রুত পরিবর্তনশীল নাগরিক সমাজে প্রতিনিয়ত নানা বৈচিত্র্যের আগমন ঘটে। তারুণ্যের চাহিদার মুখেই এসব বিষয় বেশি বিবর্তিত হয়। কোনো এক সময় রাতগুলো ছিল নিজেকে গুটিয়ে রাখার সময়। ধীরে ধীরে তারুণ্যের কাছে পতন হতে থাকে রাতের। তারা রাতকেও জয় করে ফেলে। জয় করে অন্ধকারের বাধাকে। তারুণ্য মূলত ঘুমায় না। তারুণ্য জেগে থাকার গল্পেই বেশি মুখর।
পবিত্র রোজার সময়গুলোতে সেহরি-ইফতার নিয়ে প্রতিনিয়তই নতুন নতুন চমক থাকে সবসময়। সে ধারাবাহিকতায় গত কয়েক বছর ধরে শুরু হয়েছে রেস্টুরেন্টে রেস্টুরেন্টে সেহরির আয়োজন। এই আয়োজন এ কদিনেই ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করে ফেলেছে।
রাত একটু গভীর হলেই মূলত তরুণের দল জেগে ওঠে সোডিয়ামের আলোয়। দলবদ্ধভাবে বেরিয়ে পড়ে সেহরি খেতে। জ্যাম আর অব্যবস্থাপনায় দিনের বেলায় যখন প্রায় সব আয়োজন নিয়ে ব্যর্থ এই শহর, তখন সেহরি একটা আলাদা মাত্রা যোগ করেছে। অফিস শেষে ইফতার হোক বা রাতের খাবারের দাওয়াত সবকিছু নিয়ে একটা বড় ঝুঁকি থেকে যায় সময়মতো পৌঁছানো নিয়ে। সেদিক বিবেচনায় সেহরির আয়োজন অনেক বেশি সময়বান্ধব।
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কল্যাণে এই বিষয়টা আরও বেশি বিস্তৃতি লাভ করেছে। খাওয়ার পর দল বেঁধে সেলফি তোলা এবং তা ফেসবুকসহ অন্যান্য মাধ্যমে আপলোডের মাধ্যমে তা যেমন নিজের বিষয়টা জানানো যাচ্ছে তেমনি অন্যরাও তা থেকে উৎসাহিত হচ্ছে। জেনে যাচ্ছে, শহরের কোথায় কোথায় হয় সেহরির আয়োজন। ফলে প্রতিনিয়তই বাড়ছে এই সেহরি নিয়ে আয়োজনের সমাহার।
ঢাকার কলাবাগান থেকে পুরান ঢাকায় পরিবার সঙ্গে সেহরি খেতে এসেছেন নেহা চৌধুরী। তার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তিনি প্রতিবছরই এখানে সেহরি খেতে আসেন। ‘এখানকার খাবার স্বাস্থ্যকর আর মজার হওয়ায় প্রতিবার আমরা সেহরি খেতে আসি।’ বিশেষ করে চিকেন মোসাল্লাম, খিচুড়ি ভালো লাগে।’
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল শিক্ষার্থী পুরান ঢাকায় সেহরি খেতে এসেছেন,
কেন এখানে খেতে আসেন এমন প্রশ্নে সোজাসুজিই জবাব তাদের ‘পুরান ঢাকার প্রতিটা রেস্টুরেন্টের খাবারগুলো অনেক মজার। আমরা দলবেঁধে খেতে আসি’
ভালো লাগে তাই। দামের হিসাব করার চেয়ে আনন্দ পাওয়াটাকে বেশি গুরুত্ব দেওয়ার কথা জানান এ তরুণ শিক্ষার্থীর দল।
ব্যক্তি উদ্যোগের পাশাপাশি ইদানীং করপোরেট অফিসগুলো সেহরি পার্টির বিশেষ আয়োজনের পসরা নিয়ে আসছে তার ক্লায়েন্ট এবং কলিগদের জন্য। পিআর প্রতিষ্ঠান এক্সট্রা পিআর কয়েক বছর ধরে তার ক্লায়েন্টদের জন্য সেহরি পার্টির আয়োজন করছে। সে সম্পর্কে প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী জোবায়ের রুবেল বলেন, আমরা আমাদের ক্লায়েন্ট, সাংবাদিক বন্ধু এবং শুভাকাক্সক্ষীদের জন্য প্রতিবছরই এই আয়োজন করি। আমরা একটু ভিন্নভাবে নিজেদের উপস্থাপন এবং সবার সঙ্গে একটা মিলনমেলা করতে চাওয়া থেকেই এই আয়োজন করে আসছি।
প্রতিবছর ক্রমপ্রসারমান এই সেহরি পার্টি শহরজুড়েই ছড়িয়ে পড়ছে। ঢাকা উত্তর থেকে দক্ষিণ সর্বত্রই এটা ছড়িয়ে পড়ছে। উত্তরা, বনানী, গুলশানের অভিজাত হোটেল রেস্টুরেন্ট থেকে পুরনো ঢাকার আল রাজ্জাক, বিসমিল্লাহ, নান্না হোটেল সব জায়গাতেই আয়োজন করা হচ্ছে সেহরির।
ঢাকার রেস্টুরেন্টে সেহরির আয়োজনে মোটামুটিভাবে মুগলীয় ও বাঙালি খাবারের আয়োজন থাকে। বিরিয়ানি, সাদা ভাত, সাদা পোলাও, খাসির রেজালা, লেগরোস্ট, গ্লাসি, গরুর কালা ভুনা, মোরগ মোসাল্লাম, চিকেন কারি, চিংড়ি, রুই, পাবদা ও ইলিশ ভুনা, ডাল ইত্যাদি নানা জনপ্রিয় খাবারের আইটেম থাকে। সঙ্গে লাচ্ছি, ফালুদা, ফলের রস, দই, ফিরনি, কোমল পানীয়, চা-কফি তো আছেই।
এখন পর্যন্ত সেহরির আয়োজনে সাড়া কেমন জানতে চাইলে আল রাজ্জাকের ম্যানেজার রানা বলেন, কেবল মানুষ আসা শুরু হয়েছে। ১০ রোজার পর তো বসার জায়গাই পাওয়া যাবে না এমন অবস্থা দাঁড়ায়। আমরা আশাবাদী এবারও জমবে। নিরাপত্তা বিষয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, যারা খেতে আসেন তাদের জন্য বংশাল থানার পুলিশ নিরাপত্তা দেয়। কোনোরকমের ঝামেলা এর আগে এদিকে হয়নি।
আর ক্রেতা সমাগমে সাড়া কেমন আসছে জিজ্ঞেস করলে স্টার কাবাবের মজিবুর রহমান বলেন, এখনো জমে ওঠেনি, খুব বেশি সাড়া পাচ্ছি না। তবে রোজা এক সপ্তাহ হয়ে গেলে হয়তো ভিড় বাড়বে।’ তার কাছ থেকে আরও জানা যায়, শুধু ধানমণ্ডি নয়, অন্যান্য এলাকা থেকেও মানুষ সেহরি খেতে স্টার কাবাবে আসেন।

0 1054
কারিকা ডেস্ক
জরাজীর্ণ দেয়াল, ভাঙা চেয়ার, টেবিল সব কিছুতেই রয়েছে অনেক স্মৃতি, ইতিহাসের পরম স্পর্শ। হাজারো হাসি-কান্না, সুখ-দুঃখ এবং স্বাধিকার আন্দোলনের নীরব সাক্ষী হয়ে এখনো গৌরবের পতাকা হাতে দাঁড়িয়ে আছে ছাত্র আন্দোলনের সূতিকাগার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মধুর ক্যান্টিন। মধুর স্টল, মধুর টি-স্টল, মধুর রেস্তোরাঁ থেকে কালক্রমে প্রতিষ্ঠিত মধুর ক্যান্টিন’ নামটিই যেন একটি ইতিহাস।
৪৮-এর ভাষা আন্দোলন, ৪৯-এর বিশ্ববিদ্যালয়ে চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের আন্দোলন, ৫২-র আগুনঝরা দিন, ৫৪-র যুক্তফ্রন্টের নির্বাচনী যুদ্ধ, ১৯৫৮-৬০ সালের প্রতিক্রিয়াশীল বিরোধী ছাত্র আন্দোলন, ৬৬-র ৬ দফার আন্দোলন, ৬৯-র গণঅভ্যুত্থান, ৭০-এর নির্বাচন এ সবকিছুর সঙ্গে মধুর ক্যান্টিনের নাম ওতপ্রোতভাবে জড়িত।
প্রবীণ রাজনীতিবিদদের কাছ থেকে জানা যায়, ৬৯ থেকে ৭১ পর্যন্ত বহু বৈঠক মধুদার ক্যান্টিনে হয়েছে। রাতের অন্ধকারে এসব বৈঠক সম্পর্কে রাজনৈতিক নেতারা ছাড়া শুধু মধুদাই অবহিত থাকতেন। মধুদা সবার খাওয়ার ব্যবস্থা করতেন। মধুর ক্যান্টিন ছিল প্রগতিবাদী গণতান্ত্রিক ছাত্র আন্দোলনের অলিখিত হেড কোয়ার্টার।
বাঙালির স্বাধিকার অর্জনের ইতিহাস থেকে মধুর ক্যান্টিনকে আলাদা করা কঠিন। নিজস্ব ভূখন্ডে সামাজিক, সাহিত্যিক, সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিক আন্দোলনের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন ক্যান্টিনের স্বত্বাধিকারী সবার প্রিয় মধুদা। আর বাংলাদেশের ঐতিহাসিক আন্দোলনের মুখ্য পীঠস্থান অথবা তার বীজরোপণের জমিন ছিল মধুর ক্যান্টিন।
উনিশ শতকের প্রথম দিকে বিক্রমপুরের শ্রীনগরের জমিদারদের সঙ্গে মধুদার পিতামহ নকরীচন্দ্রের ব্যবসায়িক সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ব্যবসা প্রসারের উদ্দেশে নকরীচন্দ্র তার দু’পুত্র আদিত্যচন্দ্র ও নিবারণ চন্দ্রসহ ঢাকায় আসেন। তারা জমিদার বাবুর জিন্দাবাজার লেনের বাসায় আশ্রয় নেন। ১৯২১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর নকরীচন্দ্র পুত্র আদিত্য চন্দ্রের ওপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ব্যবসা প্রসারের দায়িত্ব দেন। নকরীচন্দ্রের মৃত্যুর পর আদিত্যচন্দ্র ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় স্থায়ীভাবে বসবাসের মাধ্যমে তার ব্যবসা শুরু করেন। ব্রিটিশ পুলিশ এ সময় ক্যাম্পাসের আশপাশের ব্যারাক ও ক্যাম্প প্রত্যাহার করার উদ্যোগ নিলে আদিত্যচন্দ্র ব্রিটিশ পুলিশের কাছ থেকে ৩০ টাকার বিনিময়ে দুটি ছনের ঘর ক্রয় করে তার একটিতে বসবাস শুরু করেন। মধুদা তখন ১৫ বছরের তরুণ। তিনি ১৯৩৪-৩৫ সাল থেকেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তার পিতা আদিত্য চন্দ্রের সঙ্গে খাবারের ব্যবসা শুরু করেন। ১৯৩৯ সালে পক্ষাঘাতে পিতার মৃত্যুর পর মধুদা পারিবারিক ব্যবসার হাল ধরেন। পাশাপাশি তার বড়ভাই নারায়ণ চন্দ্রের পড়াশোনার খরচ জোগাতে থাকেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের দাবির পেক্ষিতে ডাকসু কার্যক্রম শুরু হয় এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবনের পাশে মধুদার দায়িত্বে ক্যান্টিন প্রতিষ্ঠিত হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার আগেই এর সূচনা। চারদিকে দেয়ালঘেরা এ ভবনটি নবাবদের একটি বিশ্রামাগার হিসাবে ব্যবহার করা হতো। বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবন ঢাকা মেডিকেল থেকে স্থানান্তর করে বর্তমান ভবনে আনা হলে মধুদাও এখানে চলে আসেন। মধুদার বন্ধুসুলভ আচরণ ও সততার জন্য তিনি ছাত্রদের কাছে বেশ বিশ্বস্ত হয়ে ওঠেন। ফলে ক্যান্টিনটি ক্রমেই ছাত্ররাজনীতির মূল ঘাঁটিতে পরিণত হয়।
মধুর ক্যান্টিনে উঠতি লেখক, নাট্যকার, সঙ্গীতজ্ঞ, ক্রীড়াবিদ, সেরা ছাত্র, ছাত্র আন্দোলনের নেতা ও কর্মীদের ভিড় ছিল সবসময়। অনেকেই দাম মেটাতেন, কেউ কেউ লিখে রাখতে বলতেন। মধুদার হিসেবের খাতাটি নিয়েও রঙ্গ-রসিকতার কম ছিল না। খাতাটির শিরোনাম ছিল ‘না দিয়া উধাও’।
মুক্তিযুদ্ধের সময় মধুর ক্যান্টিন পাক-বাহিনীর রোষানলে পড়ে। এর জের ধরে ‘৭১ সালে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হাতে নির্মমভাবে শহীদ হন সবার প্রিয় মধুদা, তার স্ত্রী, বড় ছেলে ও তার নববিবাহিত স্ত্রী। এরপর ক্যান্টিনের হাল ধরেন মধুদার বড় মেয়ে। এক সময় মেয়ের বিয়ে হয়ে গেলে এটি চলে আসে তার বড় ছেলে অরুণ কুমার দে’র কাছে। অরুণদাই মধুর ক্যান্টিন এখনো পর্যন্ত করে রেখেছেন গতিময়।
শিক্ষার্থীদের অভিযোগ অযত্ন আর অবহেলায় ধীরে ধীরে জৌলুস হারাচ্ছে মধুর ক্যান্টিন। চেয়ার-টেবিল সঙ্কট, অপরিচ্ছন্নতা এবং অস্বাস্থ্যকর ও নিম্নমানের খাবার পরিবেশন করে গলাকাটা মূল্য আদায়ের কারণে এমনটি ঘটছে বলে মনে করেন শিক্ষার্থীরা। এখানকার চায়ের যে আলাদা একটা স্বাদ ছিল, সেটিও নেই। মিষ্টিগুলো ছোট হতে হতে মাছের চোখের মতো আকার নিয়েছে। নেই পর্যাপ্ত চেয়ার-টেবিল। ক্যান্টিন দেখতে আসা দর্শনার্থীরা ফিরে যাচ্ছেন নিরুৎসাহিত হয়ে। একসময় ছাত্রনেতারা ক্যান্টিনের মধ্যে নেতাকর্মীদের নিয়ে গোলটেবিল আলোচনা ও আড্ডা দিলেও এখন আর সেই সুযোগ নেই তাদের। বাধ্য হয়েই তাদের এখন বসতে হচ্ছে ক্যান্টিনের সামনের আমতলা আর বেলতলায়।
এ বিষয়ে ক্যান্টিনের স্বত্বাধিকারী অরুণ কুমার দে বলেন, অনেক আগে আমি ক্যান্টিনের সংস্কারের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত আবেদন করেছি। এখন পর্যন্ত কোনো সাড়া পাচ্ছি না।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, মধুর ক্যান্টিনের ঐতিহ্য রক্ষায় আমরা সর্বদা সচেষ্ট। কিছু পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। অতি দ্রুত কাজ শুরু করা হবে।

0 2006

কারিকা ডেস্ক

রাজধানীর হাজারীবাগের ট্যানারি কারখানাগুলো সাভারের চামড়া শিল্প নগরীতে স্থানান্তরের জন্য ৭২ ঘণ্টা সময় বেঁধে দিয়েছেন সরকার। অন্যথায় এসব কারখানা বন্ধ করে দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু।Asad_T (8)

সম্প্রতি শিল্প মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত এক সভায় এ সময়সীমা বেঁধে দেন শিল্পমন্ত্রী। চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরে শিল্প খাতের উন্নয়নে সরকার গৃহীত বিভিন্ন প্রকল্পের কার্যক্রম মূল্যায়নের লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট প্রকল্প পরিচালক ও সংস্থাপ্রধানদের নিয়ে এ সভার আয়োজন করা হয়।
সভায় ট্যানারি স্থানান্তরের নির্দেশ দিয়ে গতকালই ট্যানারি মালিকদের বরাবর উকিল নোটিস পাঠানোর জন্য বিসিককে নির্দেশনা দেন শিল্পমন্ত্রী। ৭২ ঘণ্টা অতিবাহিত হওয়ার পরও কোনো ট্যানারি মালিক হাজারীবাগ থেকে প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী কারখানা স্থানান্তরে ব্যর্থ হলে সাভারের চামড়া শিল্প নগরীতে তার নামে বরাদ্দকৃত প্লট বাতিলেরও নির্দেশনা দেন তিনি।

Asad_T (11) সভায় সাভারে বাস্তবায়নাধীন চামড়া শিল্পনগরী প্রকল্পের অগ্রগতি মূল্যায়নকালে শিল্পমন্ত্রী বলেন, নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে চামড়া শিল্প নগরীতে সিইটিপির বর্জ্য পরিশোধনকাজ শুরু করতে হবে। যেসব ট্যানারি মালিক নির্মাণকাজে বিলম্ব করছেন, তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। যারা ট্যানারি স্থানান্তরের জন্য সরকারের দেয়া ক্ষতিপূরণের অর্থ নিয়ে কাজ বন্ধ রেখেছেন, তাদের হাজারীবাগের কারখানার মালপত্র ক্রোক করা হবে। শিল্পমন্ত্রীর সভাপতিত্বে সভায় অন্যান্যের মধ্যে শিল্প সচিব মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া, মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতAsad_T (9)ন কর্মকর্তা, মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বিভিন্ন সংস্থা ও করপোরেশনের প্রধান এবং সংশ্লিষ্ট প্রকল্প পরিচালকরা উপস্থিত ছিলেন। পরিবেশদূষণের কারণে ২০০৩ সালে হাজারীবাগ থেকে ট্যানারি কারখানাগুলো সাভারে চামড়া শিল্প নগরীতে স্থানান্তরের উদ্যোগ নেয় সরকার। তবে শিল্প মালিকদের ক্ষতিপূরণ ও অবকাঠামো উন্নয়ন-সংক্রান্ত জটিলতায় বারবার সময় পেছায় ট্যানারি শিল্প স্থানান্তরের এ প্রকল্প। এ লক্ষ্যে ১ হাজার কোটি টাকার বেশি ব্যয়ে সাভারে চামড়া শিল্প এলাকার অবকাঠামো উন্নয়ন করে সরকার। সেখানে বর্জ্য শোধনাগার নির্মাণসহ ১৫০-এর অধিক কারখানার জন্য প্লট বরাদ্দ দেয়া হয়। তবে শিল্প মালিকদের ক্ষতিপূরণ প্রদান ও শিল্পপার্ক গড়ে তুলে নতুন কারখানা স্থাপনে ব্যাংক ঋণের সুদের হার সিঙ্গেল ডিজিটে করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত না হওয়ায় কারখানা স্থানান্তর করছিলেন না ট্যানারি মালিকরা। শেষ পর্যন্ত সরকার তাদের দাবি মেনে ক্ষতিপূরণের ২৫০ কোটি দেয় এবং সুদের হার সিঙ্গেল ডিজিট করার আশ্বাস দেয়। এর পরই সাভারে কারখানা স্থাপন শুরু করেন ট্যানারি মালিকরা। তবে কিছু প্রতিষ্ঠান তাদের নির্মাণকাজ শেষ পর্যায়ে নিয়ে এলেও অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানই তা না করে হাজারীবাগেই কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। কারখানা স্থানান্তরের ক্ষেত্রে বড় প্রতিষ্ঠানগুলোই পিছিয়ে রয়েছে বলে বিসিক সূত্রে জানা গেছে।

আর্কিডেন ইন্টেরিয়র
ক্রিস্টাল প্যালেস, (৩য় তলা)
বাড়ি #এসই (ডি) ২২, রোড # ১৪০
গুলশান সাউথ অ্যাভিনিউ, গুলশান – ১, ঢাকা – ১২১২
ফোন – ০১৭৯৪৬০৪৬০৮, ০১৭৯৪৬০৪৬০৯
ওয়েবসাইট – www.archideninterior.com
ক্রিয়েটিভ ইন্টেরিয়র ডিজাইন
মোহাম্মদী হাউজিং সোসাইটি
ফ্ল্যাট #এ৪, রোড #৪, বাড়ি #২৩৫
মোহাম্মদপুর, ঢাকা – ১২০৭
ফোন – ০১৭৫৫৫৫৯৩৩৭, ০১৭৫৫৫৫৯৩৩৯, ৮১২৮৬৬৪
ওয়েবসাইট – www.creativeinteriorbd.com
ইভানজেল আর্কিটেক্ট
বাড়ি #৩৭১, রোড – ২৮, নিউ ডিওএইচএস মহাখালী
ঢাকা ১২০৬, বাংলাদেশ
ফোন – ০২ – ৯৮৩৬৩৩০, ০১৭৬০১৩২১৯৯
ওয়েবসাইট – www.evangelarchitects.com
জিরো ইঞ্চ ইন্টেরিয়রস লিমিটেড
বাড়ি #১৪, রোড ৬/এ, সেক্টর ৫
উত্তরা, ঢাকা – ১২৩০
ফোন – ০১৮১৬ ০৮৯৮০৪
ওয়েবসাইট – www.zeroinchinteriorsltd.com
তামান্না ইন্টেরিয়রস
৬০/ই/১, দেওয়ান কমপ্লেক্স (২য় ফ্লোর)
পুরানা পল্টন, ঢাকা – ১০০০, বাংলাদেশ
ফোন – ০২ – ৭১১৯৯৩৩, ৭১১৮২৭১
ওয়েবসাইট – www.tamannainteriors.com
ইন্টেরিয়র কনসেপ্টস
৩২৩, আফতাব টাওয়ার, ২য় তলা, পূবালী ব্যাংকের পাশে
ডিআইটি রোড, পূর্ব রামপুরা
ফোন – ০১৬১৮৯০০৫৫৫, ০১৬১৮৯০০৫৫৬, ০১৬১৮৯০০৫৫৭
ওয়েবসাইট – www.interiorconcepts.bd.com
ডিজাইন অ্যাসোসিয়েট বিডি
২১, শাহ মাকদ্দুম অ্যাভিনিউ, সেক্টর – ১৪, উত্তরা, ঢাকা
ফোন – ০১৬৭২৩৩৬৫৮৬
ওয়েবসাইট – www.designassociatebd.com
আইনেক্স ইনটেরিয়র
কলাবাগান বাস স্ট্যান্ড, (ধানমন্ডি – ৮) ম্যাবস কোচিং সেন্টার বিল্ডিং, (৩য় তলা)
ফোন – ০১৯১১৭৭২৩৯৮, ০১৬১১৭৭২৩৯৮, ০১৬৭১৫০২৩৯৬
ওয়েবসাইট – www.inexterior-black-iz.com
স্থপতি অ্যাসোসিয়েট লিমিটেড
বাড়ি – ৩১ (৪র্থ তলা), রোড নং – ১, ব্লক – এফ, বনশ্রী
ফোন – ০২ ৮৩৯৯৫১৩, ০১৭৭৪৯৫৫৫৯৯, ০১৯১৩৫২৯২৩৩
ওয়েবসাইট – www.bdsthapati.com
ঢাকা ডেকর
রোড – ২৮, বাড়ি # ৩, সেক্টর – ৭
উত্তরা – ১২৩০, ঢাকা
ফোন – +৮৮ ০২ ৭৯১৩৩১০
মোবাইল – ০১৭১২৪০৫৫৮২, ০১৭৪৯১৯০২৭০
ওয়েবসাইট – www.dhakadecor.com
আইকনিক ডি স্টুডিও
বাড়ি # ৬২, রোড # ১৪/১, ব্লক জি, নিকেতন, গুলশান – ১
ঢাকা ১২১২
ফোন – ০১৭৪১৫৫৯৩৮৯
ওয়েবসাইট – www.iconicdstudio.com
ইন্টেরিয়র নলেজ
বাড়ি # ৫/এ, রোড – ১৩৭, গুলশান, ঢাকা – ১২১২
ফোন – ০১৭১১২৩৩৩৮৩, ০১৭১১৯৭৫৫৯৭
ওয়েবসাইট – www.interiorknowledge.org

আইডিই ডিজাইন লিমিটেড
সুইট – ৫০৩, প্লাজা এআর, হাউজ নং – ২
রোড নং – ১৪, সোবহানবাগ, ধানমন্ডি – ঢাকা – ১২০৯
ফোন – ০১৮১৭২৯৪৩২৮, ৮১১০৩৫২, ৯১১৪০৭৯
ওয়েবসাইট – www.ide-bd.com
স্কেচ ইঞ্জিনিয়ার্স অ্যান্ড আর্কিটেক্টস
বাড়ি # ৩৪, রোড # ১৪/এ
লেভেল ৪, ফ্ল্যাট ৪/বি
ঢাকা – ১২০৯
ফোন – ০২ ৮১৫৪৫৩৭, ৯১০৩৯৪৪
মোবাইল – ০১৭১৪১১৫৮২২
ওয়েবসাইট – www.scetchinterioir.com
আস্থা ইন্টেরিয়র
বাড়ি # ৩৫৮ – ৩৬০, রোড – ৭
মিরপুর ডিওএইচএস, ঢাকা ১২১৬
ফোন – ৮০৮১২৭৭, ৯১৪০৭৩৩, ০১৭৩৬৯৯৪৬৮২, ০১৯৭৭২২৫৫৩২
ওয়েবসাইট – www.asthainterior.com
একে ট্রেডার্স লিমিটেড
সুইট # ৬/সি, রূপসা টাওয়ার, কামাল আতার্তুক অ্যাভিনিউ, বনানী
ঢাকা – ১২১৩
ফোন – ০২ ৮৮৫৯০৭৪, ৯৮৮৩৫৩৫
অ্যাডভান্স ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড
২১/এফ, বাঁশবাড়ি, ব্লক ডি, মোহাম্মদপুর
ঢাকা – ১২০৭
ফোন – ০২ – ৮১২০৫১০
স্যানমার ইন্টেরিয়র অ্যান্ড আর্কিটেকচার
ল্যান্ডমার্ক টাওয়ার (৩য় তলা), ১২, ১৪ নর্থ অ্যাভিনিউ গুলশান ২,
ঢাকা ১২১২
ফোন – ০২ – ৫৮৮১০৩৪৮-৫০, ৮৮৩৬৯৪৪

0 3105

কেএসআরএম স্টিল
কর্পোরেট অফিস
কবির মঞ্জিল, শেখ মুজিব রোড, আগ্রাবাদ, চিটাগং
ফোন: ০৩১ – ৭১১৫০১ – ৪, ২৫১৩৭৯১৪
ঢাকা অফিস
নাসির ট্রেড সেন্টার, ৫ম তলা
৮৯, বীর উত্তম সিআর দত্ত রোড, বাংলামটর, ঢাকা।
ফোন – ০২ – ৮৬২৯৭৪৭, ৯৬৬৪৮৯৭, ৯৬১১৪০৭ – ৮
ওয়েবসাইট – www.ksrm.com

আবুল খায়ের অ্যান্ড কোং (একেএস)
হুসেইন এন্ড খান সেন্টার, (১৪ তলা), ১৩ দিলখুশা
ঢাকা – ১০০০
ফোন – ০২ – ৯৫৫৪০২৫, ৯৫৫০৩২৪

বসুন্ধরা স্টিল
১২৫/এ। বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা
বারিধারা, ঢাকা ১২২৯
পিএবিএক্স : ০২ ৮০৪২০০৮ – ১৭,
ফ্যাক্টরি অফিস
বসুন্ধরা স্টিল কমপ্লেক্স লিমিটেড
গোলোরা, জাগির, পোস্ট অফিস – কাইট্টা
জেলা: মানিকগঞ্জ
পিএবিএক্স – ০৬৫১ – ৬১০০৮
ওয়েবসাইট – www.basundhorasteel.com

রাণী রি – রোলিং মিলস
বাড়ি : ৩৯, রোড : ১২, ব্লক – কে
বারিধারা ডিপ্লোম্যাটিক জোন, ঢাকা ১২১২।
ফোন – +৮৮ – ০২ – ৯৮৯৪৪৮৪
ফ্যাক্টরি অফিস
বাড়ি : ২১, রোড : ৩২
শ্যামপুর, কদমতলী শিল্প এলাকা ঢাকা – ১২০৪ বাংলাদেশ
ফোন – ০১৭৭৭৭৫৮১০০
ওয়েবসাইট – www.ranisteel.com

রতনপুর স্টিল রি – রোলিং মিলস লিমিটেড
হেড অফিস – নাহার ম্যানশন, ১১৬ সিডিএ অ্যাভিনিউ, মুরাদপুর, চিটাগং
ফোন – +৮৮ ০৩১৬৫২২৫৫ – ৭
ঢাকা অফিস
রূপায়ন গোল্ডেন এজ, (অষ্টম তলা), ৯৯ গুলশান অ্যাভিনিউ, গুলশান – ২
ঢাকা – ১২১২
ফোন –: ০২ – ৯৮৯২৯৩৬, ৯৮৯০৪৫৭, ৮৮১২৫২১
ওয়েবসাইট – www.rsrmbd.com
শেয়ার ডেপট
২৯১, ফকিরাপুল ( জমিদার বাড়ি), অ্যাপার্টমেন্ট #বি – ৯ ( ১০ম তলা)
ফোন : +৮৮ – ০২ ৭১৯৫৮৪০, ৭১৯৫৮৪১
ফ্যাক্টরি
১৭৫ -৭৬ বায়জিদ বোস্তামী আই/এ, বায়জিদ বোস্তামী রোড চিটাগং
ফোন : + ৮৮ ০৩১ ২৫৮০৩৮০

বিএসআরএম স্টিল
চিটাগং কর্পোরেট অফিস
আলী ম্যানশন, ১২০৭/১০৯৯, সদরঘাট রোড, চট্টগ্রাম
ফোন: + ৩১ – ২৮৫৪৯০১ – ১০
ঢাকা কর্পোরেট অফিস
মাহবুব ক্যাসেল, (৩য় ও ৫ম তলা)
৩৫/এ, পুরানা পল্টন লাইন
ঢাকা – ১০০০, বাংলাদেশ
ফোন – +৮৮ ৩১ ৬১০১০১
ওয়েবসাইট – www.bsrm.com

জিপিএইচ ইস্পাত
হেড অফিস
৩২৫, আসাদ্গঞ্জ, চিটাগং – ৪০০০
ফোন: ৩১৬৩৮৫০৭, ৮৪০৩৫৮, ৮৪২৪৮৬, ৬১১৩১৩, ৬৩৪৩৮৭,৬২৪২৮১, ২৮৫০১১০
পিএবিএক্স : ৬৩১৪৬০
ঢাকা অফিস
হামিদ টাওয়ার, ৫ম তলা
২৪, গুলশান বাণিজ্যিক এলাকা, সার্কেল -২, ঢাকা – ১২১৩
ফোন : ০২ – ৯৮৪০১৭৭
ফ্যাক্টরি
মসজিদ্দাহ, কুমিরা, সীতাকুণ্ড, চিটাগং

কর্ণফুলী স্টিল মিলস
বড় কুমিরা, সীতাকুন্ড, চিটাগং
ফোন: ০১৭১৩১০৬১৮৪
ওয়েবসাইট – www.tkgroupbd.net

জালালাবাদ স্টিল লিমিটেড
৫৬, গোলনগর লেন, ইংলিশ রোড
ঢাকা – ১০০০
ফোন – ০২ – ৭৩৯৩০৯২

বাংলাদেশ স্টিল অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং কর্পোরেশন
বিএসইসি ভবন, ১০২, কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভিনিউ
ঢাকা ১২১৫
ফোন : ০২ – ৮১২০৩০১

এএসআরএম
হেড অফিস
বাড়ি: ১১৯, (২য় তলা), রোড: ০১
ব্লক : এফ, বনানী, ঢাকা – ১২১৩
ফোন: ০২ ৯৮৯৪১৬৯
ফ্যাক্টরি অফিস
বাউপাড়া, ভীমবাজার, গাজীপুর
ফোন – ০১৭১১১৮২৩৫৪, ০২ ৯২০৪১৫৩
ওয়েবসাইট – www.satata.com

রহিম স্টিল
২৯/১০, কেএম দাস লেন, টিকাটুলি
ঢাকা – ১২০৩, বাংলাদেশ।
ফোন: ০২ – ৯৫৫৭৬২১, ৭১১৭২৯৭, ৯৫৬৩০০৪ – ৫
ওয়েবসাইট: www.rahimgroup.org

পিইবিএসএএল স্টিল এলায়েন্স লিমিটেড
৭ম এবং ৮ম তলা, প্রিয়প্রাঙ্গন টাওয়ার
১৯, কামাল আতার্তুক অ্যাভিনিউ, বনানী
ঢাকা ১২১৩
ফ্যাক্টরি: নয়াবাজার, চৌদ্দগ্রাম, কুমিল্লা
ফোন – ০২ ৯৮২১৮৮৬, ০২ ৯৮২১৮৮৮, ০২ ৯৮২১৮৮৯, ০২ ৯৮২১৮৯০

এইচএসজি স্টিল (হক স্টিল গ্রুপ)
বাড়ি ৪৩, রোড ১, ধানমন্ডি, ঢাকা – ১২০৫, বাংলাদেশ
ফোন: ০২ ৯৬১১৮২২, ০২ ৯৬১১৮২৫
ওয়েবসাইট: www.hsg,.com.bd

ম্যাগনাম স্টিল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড
বাড়ি ১৫, রোড ২৪, (সিএনডব্লিউ) , (৩য় তলা)
গুলশান, ঢাকা ১২১২
ফোন: ০২ ৮৮১৪২৪৭

হাই টেক স্টিল অ্যান্ড রি – রোলিং মিলস
১৯৯, সৈয়দ নজরুল ইসলাম সরণী, বিজয়নগর
৬ষ্ঠ তলা, সুইট # ৬
ফোন: +৮৮ – ০১৭১৩০০২৪০০
ওয়েবসাইট – www.hi-techbd.com

স্যামসন স্টিল মিলস লিমিটেড
সিটি হার্ট (৮ম তলা)। ৬৭ নয়াপল্টন
ঢাকা ১০০০
ফোন –০২ ৯৩৪৬৫৯৭, ৯৩৪৬৯৫০, ৮৩৫৩০৯৬

আই আই টিউব মিলস লিমিটেড
১৯/১বি, ওয়ারী
ঢাকা – ১২০৩
ফোন – ০২ – ৭১১৭৫৮৯, ৭১১৬০০৭

খান স্টিল
২২৮/১ -২, শেওড়াপাড়া, বেগম রোকেয়া সরণী, মিরপুর
ঢাকা – ১২১৬
ফোন – ০২ – ৮১১২৪৭৪, ৮০১২০১৫, ৯১৩২৬৭৫

মেসার্স সিফাত স্টিল কম্পানি
৯১, সৈয়দ নজরুল ইসলাম সরণী
১৯, পুরোনো মালীতলা লেন
ঢাকা ১১০০
ফোন – ০২ – ০৪৪৭৭৮৯০৪৩৪, ০১৭৩৩৫৯৫৭১০

শফিউল আলম স্টিল মিলস লিমিটেড
২৭, দিলখুশা বাণিজ্যিক এলাকা, (১২ তলা) সুইট # ১২০৫
ঢাকা – ১২০৫
ফোন – ৭১৭৬৮৩৪, ৯৫৫১৬০৪

স্টিলটেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড
২১৯ – ২২০ গাউছিয়া প্লাজা, (৪র্থ তলা) নবাবপুর রোড
ঢাকা – ১১০০
ফোন – ০২ -৭১১৪৭৮৩, ৭১৬৫৭০৫

সুমাইয়া স্টিল কর্পোরেশন
৩৭১, ডিআইটি রোড, পূর্ব রামপুরা
ঢাকা – ১২১৯
ফোন -০২ – ৮৩৫১৪২৮

জামিল স্টিল
৭১, সোহরাওয়ার্দী অ্যাভিনিউ, বারিধারা।
ঢাকা – ১২১২
ফোন – ০২ – ৯৮৮৫৮২৯ – ৩০

গ্ল্যাকো স্টিল
৯০, ফ্রেঞ্চ রোড, নয়াবাজার
ঢাকা
ফোন – ০২ ৭৩১১৮৮৬, ৭৩১১৪৭৮, ৭৩১০১৬৭

0 1432

বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশ
বার্জার হাউজ, বাড়ি # ৮, রোড # ২, সেক্টর #৩
উত্তরা মডেল টাউন, ঢাকা – ১২৩০
ফোন – ০২ – ৮৯৫৩৬৬৫
ওয়েবসাইট – www.bergerbd.com

আরএকে পেইন্ট লিমিটেড
বাড়ি : ০৫, (৩য় এবং ৪র্থ তলা)
রোড ১/এ, সেক্টর : ৪
উত্তরা মডেল টাউন, ঢাকা ১২৩০, বাংলাদেশ।
ফোন – ০২ – ৮৯১৩৫৫১
ওয়েবসাইট – www.rakpaints.com

রক্সি পেইন্টস
বাড়ি : ৮, লেভেল : ৪ – ৫, রোড : ৪
ধানমন্ডি আবাসিক এলাকা, ঢাকা – ১২০৫
ফোন – +৮৮ ০২ ৯১১৮৪৮১, ৯১২ ৬১৫৪
ওয়েবসাইট – www.roxypaints.com

এশিয়ান পেইন্টস বাংলাদেশ
বাড়ি : ৪২৮/এ (৪, ৫, এবং ৬ষ্ঠ তলা)
রোড : ৩০, নিউ ডিওএইচএস, মহাখালী, ঢাকা – ১২০৬।
ফোন : ০২ – ৮৮৫৯৩২৯, ৯৮৯৩২৮৩, ৮৭১৩০৮৭O
ওয়েবসাইট – www.asianpaints.com

অ্যাকুয়া পেইন্টস
৫৪, মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা (৩য় তলা), ঢাকা – ১০০০ বাংলাদেশ
ফোন – ৯৫৬১৩৭৬, ৭১৬০১৩২, ০১১৯৯৮৮৮১০০
ওয়েবসাইট – www.aquapaints.com

নাভানা পেইন্টস
৩৮৮/এ, তেঁজগাও ১/এ, ঢাকা ১২০৮
ফোন – ৯১৩৭২১৭৮, ৮১২৩১৭৪
ওয়েবসাইট – www.navana.com

এফএমসি পেইন্ট
রূপসা টাওয়ার, ফ্ল্যাট #১৩সি, রোড #১৭, হাউজ #৭
কামাল আতার্তুক অ্যাভিনিউ, বনানী।
ঢাকা – ১২১৩, বাংলাদেশ।
ফোন – +৮৮ ০২ ৯৮২১১০৮, +৮৮ ০১৯৭১৩৬২০৬৬
ওয়েবসাইট – www.fmcgroupbd.com

পেইলাক পেইন্ট অ্যান্ড কেমিক্যাল কোং
বাড়ি -৪৬ / ৬এ, ঝিগাতলা, ধানমন্ডি।
ফোন – ০১৭১৩১১৭৯৩

এলিট পেইন্ট
এলিট হাউজ, ৫৪ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা
ফোন – ৯৫৬১৩৭৬

রোমানা পেইন্ট
১০২৮/১, মালিবাগ বাজার রোড, নূর প্লাজা, প্রথম ফ্লোর।
ফোন – ০২ ৯৩৩২৬৮৮, ৯৩৩৭৭১, ৯৩৫৬৪১০

এলাইট পেইন্ট
৮ নং নূর মসজিদ মাদ্রাসা মার্কেট
মালিবাগ চৌধুরীপাড়া ঢাকা।
ফোন – ৯৩৪৬৫০, ৯৩৪৬৫১৪, ৯৩৩৮০২৭
ওয়েবসাইট – www.alightpaint.com

উজালা পেইন্টস
এএইচএন টাওয়ার
১৩, বীর উত্তম সিআর দত্ত রোড
বাংলামটর। ঢাকা – ১০০০
ফোন – ০১৯৮৭৭০৫৯০৯ – ১২
ওয়েবসাইট -www.ujalapaints.com

জতুন পেইন্টস বাংলাদেশ
বাড়ি নং ৬, ৯ (৮ম তলা), রোড ২বি, ব্লক জে, আমেরিকান অ্যাম্বেসির কাছে
জাপানীজ অ্যাম্বেসি স্কুল, বারিধারা, ঢাকা – ১২১৬
ফোন – ০২ ৯৮৫৬৮৮৬
ওয়েবসাইট – www.jotun.com

0 1984

০১. আরএকে সিরামিকস লিমিটেড
আরএকে টাওয়ার, (৮ম, ৯ম, ১০ম তলা)
প্লট : ১/এ, সেক্টর ৩, জসীমউদ্দীন অ্যাভিনিউ, উত্তরা মডেল টাউন
ঢাকা – ১২৩০, বাংলাদেশ।
ফোন: +৮৮ – ০২ – ৫৮৯৫৭৩৯৩, ৫৮৯৫২৩০৩
ইমেইল: rak@rakcerambd.com
ওয়েবসাইট: www.rakcerambd.com

০২. চায়না বাংলা সিরামিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড
ন্যাশনাল প্লাজা, (৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা)
১০৯ বীর উত্তম সি. আর দত্ত রোড
ঢাকা ১২০৫
ফোন: ০২ – ৯৬৬৮২৭৮, ৮৬১৫৯২২, ৯৬৭৬২১৩
ওয়েবসাইটঃ www.cbctiles.com

০৩. গ্রেট ওয়াল সিরামিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড
হেড অফিস: ৩৪, বীর উত্তম সিআর দত্ত রোড, ঢাকা ১২০৫।
ফোন: ০২ – ৯৬৬৬৩০৮
ইমেইল: info@greatwallceramic.net
ওয়েবসাইট: www.greatwallceramic.com

০৪. মীর সিরামিকস লিমিটেড
বাড়ি : ১৩, রোড : ১২, ধানমণ্ডি আবাসিক এলাকা
ঢাকা ১২০৯
ফোন: ৮১১০১৩১, ৮১১০৯৯৭, ৯১৩৪৫৭২
ওয়েবসাইট: www.mirceramic.com

০৫. আকিজ সিরামিকস লিমিটেড
মফিজ চেম্বার, ৭৫ দিলকুশা বাণিজ্যিক এলাকা
ঢাকা – ১০০০
ফোন : ০২ ৯৫৬৯৬০২
ওয়েবসাইট: www.akijceramics.net

০৬. ফু ওয়াং সিরামিকস ইন্ডাস্ট্রি লিমিটেড
১১৬, বীর উত্তম মীর শওকত রোড, গুলশান ২ ঢাকা ১২১২
ফোন : ০২ – ৯৮৮৩২৭৪৫, ৮৮২৫৫৭৩, ৮৮২৫৩৬১

০৭. স্টার সিরামিকস বাংলাদেশ
বাড়ি: ৪৪, রোড: ১০, সেক্টর: ১১ উত্তরা
ঢাকা – ১২৩০
ফোন : ০২ – ৮৯৫০৩৮৪
ওয়েবসাইট: www.starceramicsbd.com

০৮. তামান্না টাইলস অ্যান্ড সেনিটারি
৬০/ ই, দেওয়ান মঞ্জিল
পুরানা পল্টন, ঢাকা— ১০০০
মোবাইল : ০১১৯৩০৭৪৮৫৭, ০১১৯১০১০৭০৬
ফোন : ০২ – ৯৫৬৫৩৯৩ , ৭১৬২২৪১
ওয়েবসাইট – www.tamannaltd.com

০৯. খাদিম সিরামিকস লিমিটেড/মিরপুর সিরামিকস
৬২ কালশী, সেকশান ১২, মিরপুর, ঢাকা, ১২১৬
ফোন: ০২ – ৯০০৯৭১২, ৯০০১৭২৯
ওয়েবসাইট: www.mirpurceramic.com

১০. মোনালিসা
প্লট : ৩৪, রোড ১২, ব্লক– কে, বারিধারা ডিপ্লোম্যাটিক জোন
ঢাকা : ১২১২
ফোন: ০২ – ৮৮২৬৮৫৩, ০২ – ৮৮২২৬২৮
মোবাইল : + ৮৮ ০১৭৭৭৭৭৩২৩২
ওয়েবসাইট : www.monalisa.com.bd

১১. টেরাকোটা বাংলাদেশ
আর/৩২, গাউসুল আজম সুপার মার্কেট
নীলক্ষেত, ঢাকা।
মোবাইল – ০১৭১২৫৯৮২২১

টাইলস ইম্পোর্টার কম্পানি

০১. এমএস নিকিতা ইন্টারন্যাশনাল
বাড়ি #৪১৭, রোড ১২, সিডিএ, আবাসিক এলাকা
আগ্রাবাদ ৪১০০
ফোন – ০১৮১৯ – ৩১১২০৪
চট্টগ্রাম

০২. বাংলাদেশ ক্লে টাইলস
৭২, বাণিজ্যিক এলাকা, মহাখালী ১২১২ ঢাকা।
ফোন – ০১৮১৯২৩০৯৮৯, ০১৯৭৫০০৩০০৫

০৩. মদিনা ট্রেডার্স
৬০, মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা,
ঢাকা – ১০০০
ফোন -০১৭১৫৬১৫০৫৫

০৪. সৌদিয়া গ্রুপ চায়না
৮০, বীর উত্তম সিআর দত্ত রোড, ঢাকা
ফোন – ০২ ৮৯৫৫৮৯০

০৫. মেসার্স প্যারেন্টস এন্টারপ্রাইজ
সিবি -২৩৮, মেইন রোড, কচুক্ষেত, ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট ঢাকা।
ফোন – ০১৯১১২৬৩৯৫৬,

০৬. হাবীব এন্ড সন ট্রেডিং কম্পানি লিমিটেড
২, বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউ, গুলশান শপিং কমপ্লেক্স, ২য় তলা
দোকান ২/ ৫৭ -৫৮
ফোন – ০১৬৭৮১৭২৭১৯
ঢাকা।

০৭. খাজা মোজাইক টাইলস অ্যাণ্ড স্টোন ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড
৩৪০/১, সোনারগাঁও রোড, ঢাকা ১২০৫
ফোন – ০১৮১৯২০৮২২২

০৮. আজাদ টাইলস লিমিটেড
৪৭৬, সি মালিবাগ, ডিআইটি রোড, ঢাকা।
ফোন – ৯৩৪৭৬৭০, ০১৭১১৬২৮৭৯৬

০৯. বাংলাদেশ টাইলস গার্ডেন লিমিটেড
১৮/৩, বাংলামোটর, ঢাকা।
ফোন – ৯৬৭০৮৯৯, ৮৬১৮৬৭৬, ০১৮১৫৪৪০৩৮০, ০১৫৫২৩৪১১৪১

১০. বেঙ্গল এজেন্সিস
বাড়ি #১৫, রোড #৭/ডি, সেক্টর #৯
উত্তরা মডেল টাউন, উত্তরা ১২৩১
ফোন – ০১৭১১৩৩৬৬৯০

১১. ঢাকা মোজাইক এজেন্সি
৪৩, ময়মনসিংহ লিংক রোড, বাংলামটর, ঢাকা -১০০০
ফোন -০১৭১৫০৮১৮৯৪

১২. কণিকা মার্বেল অ্যান্ড গ্রানাইট কোং
৮৪ বীর উত্তম সিআর দত্ত রোড, ঢাকা – ১০০০
ফোন -০১৭১৩০২৮৫৯২
বাংলামটর, ঢাকা।

১৩. ন্যাশনাল মার্বেল কম্পানি
৪৮, বীর উত্তম সিআর দত্ত রোড, ঢাকা -১০০০
ফোন – ০১৭১১৩৯২৫৭৬, ৯৬৬০৭৪৩

0 814

১. আহাদ সিমেন্ট ফ্যাক্টরি লিমিটেড
৫৫ পুরানা পল্টন, আজাদ সেন্টার (৪র্থ তলা), ঢাকা-১০০০
ফোন : ০২-৯৫৬৭৫৩৩
ওয়েব – নেই।

২. আলম অ্যান্ড কোং প্রাইভেট লিমিটেড
৫৩/৩, ডিআইটি এক্সটেনশান রোড, ফকিরাপুল, ঢাকা
ফোন : ০২-৯৩৫৪৮১০, ০১৭১১-৬৮৬৭৬৩
ওয়েব – নেই।

৩. আনোয়ার সিমেন্ট লিমিটেড
বাইতুল হোসেন বিল্ডিং (২য় তলা), ২৭, দিলকুশা বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০
ফোন : ০২–৯৫৫২১৩৪, ৯৫৭২২৫৭, ৯৫৬৪০৩৩
ওয়েব – www.anwargroup.net

৪. আপন সিমেন্ট মিলস লিমিটেড
৪১/১, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০
ফোন : ০২–৭৩৯২৪১৫, ৯৩৯২৫৯২
ওয়েব – নেই।

৫. আরামিত সিমেন্টস লিমিটেড
রেড ক্রিসেন্ট কনকর্ড টাওয়ার (১৬ তলা), ১৭ মহাখালী, ঢাকা-১২১২
ফোন : ০২-৯৮৮১০৯৫
ওয়েব – www.aramit.com

৬. বসুন্ধরা সিমেন্ট ট্রেডিং কোং লিমিটেড (কিং ব্র্যান্ড সিমেন্ট)
সেলস অফিস : ১২–এ/এ, প্রথম কলোনী, মাজার রোড, মিরপুর-১, ঢাকা-১২১৬
ফোন : ০২-৯০০২৮৮৬, ০১৭১১-৫৩২৩৫৫
ওয়েব – www.bashundharacement.com

৭. বেঙ্গল টাইগার সিমেন্ট ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড
ইকবাল সেন্টার (১৮ তলা), বনানী, ঢাকা-১২১৩
ফোন : ০২-৮৮১৩৩৮১-৬
ওয়েব – www.imamgp.com

৮. এমআই সিমেন্ট ফ্যাক্টরি লিমিটেড (ক্রাউন সিমেন্ট)
হেড অফিস : বাড়ি : ১ ও ৭, রোড : ৯৫, ব্লক : সিইএন (এ), গুলশান নর্থ অ্যাভিনিউ, গুলশান–২, ঢাকা-১২১২
ফোন : ০২-৯৮৫২৬৩১, ৯৮৫২৬৩৩–৪, ৯৮৫২৬৩৬, ৯৮৫২৬৪১
ওয়েব – www.crowncement.com

৯. টাইগার সিমেন্ট
মদিনা স্কয়ার (৫ম তলা), ৬৪/এ, শহীদ বুদ্ধিজীবি মুনির চৌধুরী সড়ক (সেন্ট্রাল রোড), ধানমন্ডি, ঢাকা–১২০৫
ফোন : ০২-৯৬৬৩৭০৬, ০২-৯৬৬৩৭১৪
ওয়েব – www.tigercementbd.com

১০. সেভেন রিংস সিমেন্ট
ল্যান্ডভিউ টাওয়ার (৮ ও ৯ তলা), ২৮, গুলশান নর্থ অ্যাভিনিউ, সি/এ, গুলশান-২, ঢাকা–১২১২
ফোন : ০২-৮৮১৭৬৯০-৩
ফ্যাক্টরি : চর মিরপুর, কালিগঞ্জ, গাজীপুর।
মোবাইল : ০১১৯৯-৮০১০০৬
ওয়েব – www.sevenrings.com.bd

১১. প্রিমিয়ার সিমেন্ট
টি.কে. ভবন (১৩ তলা), ১৩ কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভিনিউ, ঢাকা-১২১৫
ফোন : ০২-৯১২৬২২০
ওয়েব – www.premiercement.com

১২. হোলসিম সিমেন্ট
বাড়ি : ৮, রোড : ১৪, বারিধারা, ঢাকা-১২১২
ফোন : ০২-৯৮৮১০০২–৩, ০২-৮৮১২৪৮৫
ওয়েব – www.holcim.com.bd

১৩. শাহ সিমেন্ট
১৩ দিলকুশা বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০
ফোন : ০২-৯৫৫৪০২৫, ০২-৯৫৫০৩২৪
ওয়েব – www.shahcement.com

১৪. ইস্টার্ন সিমেন্ট ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড
২১–২৩ কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভিনিউ, ঢাকা-১০০০
ফোন : ০২-৯৬৬৫৩৩৮-৯
ওয়েব- নেই।

১৫. ইমেক করপোরেশন লিমিটেড
১০/২০(বি), ইস্টার্ন প্লাজা (৯ম তলা), সোনারগাঁও রোড, ঢাকা–১২০৫
ফোন : ০২-৯৬৬৪২১২, ০২-৯৬৬০৫২৩
ওয়েব- নেই।

১৬. জেমকন সিমেন্ট
মিনা হাউস, ৭১৯/এ, সাতমসজিদ রোড, ধানমন্ডি, ঢাকা।
ফোন : ০২-৯১৩৮২৪২৪-৩, ০২-৯১২৭৯৭৭
ওয়েব – www.gemcongroup.com.bd

১৭. কনফিডেন্স সিমেন্ট
ইস্পাহানী বিল্ডিং (৫ম তলা), ১৪–১৫ মতিঝিল সি/এ, ঢাকা–১০০০
ফোন : ০২-৯৫৬২৪৩১
ওয়েব – www.confidencecement.com